মশার এক কামড়েই তছনছ এই ব্যক্তির জীবন

534352_164.jpg

এখন তার বয়স ২৬। আজ থেকে ২০ বছর আগে তাকে একটি মশা কামড়েছিল। সেই মশা কামড়ানোর পর থেকেই তার জীবন বদলাতে শুরু করে। সব কিছু এলোমেলো হয়ে যায়। এখন আর তিনি হাঁটতেও পারেন না।

কম্বোডিয়ার বং চেটের জীবন এখন পুরো বদলে গেছে। ২০ বছর আগের মশার কামড়ের পর তার জীবনে একের পর এক খারাপ ঘটনা ঘটেছে। কখনো স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়েছে। কখনো মাঠে যাওয়া বন্ধ। ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন বং চেট। কিন্তু সেই স্বপ্ন এই জীবনের মতো অধরাই থেকে গেল।

২০ বছর আগে বং চেটকে এক ধরণের মশা কামড়েছিল। পায়ে হালকা আচড়ের দাগ নিয়ে মাঠ থেকে বাড়ি ফিরেছিলেন তিনি। বাড়ির লোক সামান্য আচড় ভেবে আর সেই ঘা নিয়ে মাথা ঘামাননি। এর পর থেকেই বং চেটের পা বেলুনের মতো ফুলতে থাকে। ১২ বছর বয়সে বং চেটের পা সাধারণ মানুষের থেকে পাঁচ গুণ বেশি ফুলে যায়। বংয়ের বাবা মা শ্রমিক। তাই বড় ডাক্তারের কাছে ছেলেকে নিয়ে যেতে পারেননি।

স্থানীয় ডাক্তাররা বছরের পর বছর ধরেও তার আসল সমস্যা ধরতে পারেননি। এরপর ধীরে ধীরে একেবারেই হাঁটা-চলা বন্ধ হয়ে যায় বং-এর। এখন তার সারাদিন বাড়িতে বসে কাটে। পা এতটাই ফুল থাকে যে তিনি নাড়াতে পারেন না।

দিনকয়েক আগে এক দম্পতি বং চেটের অবস্থার কথা জানতে পারেন। তারা বংকে চিকিৎসার জন্য আড়াই হাজার ডলার আর্থিক সাহায্য করবেন বলে জানান। এরপর বংকে ভাল চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

চিকিৎসকরা জানান, বং Lymphatic Filariasis রোগে আক্রান্ত। এই রোগ এক ধরণের পোকা থেকে ছড়ায়। আর সেই পোকা শরীরে ঢোকে মশার কামড়ের মাধ্যমে। এই রোগের কোনও টীকা এখনো আবিষ্কার হয়নি।

তবে ২০১৮ সালে এক ভারতীয় এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর তাঁর অস্ত্রোপচার হয়েছিল। তার পায়ের ওজন প্রায় ৩০ পাউন্ড কমাতে পেরেছিলেন চিকিত্সকরা। এবার বংয়ের অস্ত্রোপচার হবে। সব কিছু ঠিক থাকলে আবার হয়তো হাঁটতে পারবেন তিনি।

 

সূত্র : জিনিউজ

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top