কর্ণফুলীর পাড়ে ইন্ডাস্ট্রিয়াল থিম পার্ক করবে লুব-রেফ

Untitled-1-34.jpg

দিসিএম ডেস্ক।।

কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড়ের তীর ঘেঁষে ইন্ডাস্ট্রিয়াল থিম পার্ক গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে লুব-রেফ বাংলাদেশ লিমিটেড। যাতে প্রায় ১৫শ’ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে জ্বালানি খাতের এই প্রতিষ্ঠানটি। ইতোমধ্যে থিম পার্ক গড়ে তোলায় কর্ণফুলীর জুলধা এলাকায় ৩০ একর জায়গাও নির্ধারিত রয়েছে এ প্রতিষ্ঠানের। যাতে দেশের সর্ব প্রথম বেইজ অয়েল রিফাইনারি ও বিশেষায়িত বিটুমিন প্লান্টসহ এক লাখ টনের একটি ট্যাঙ্ক টার্মিনাল গড়ে তোলা হবে।
প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব অর্থের পাশাপাশি এতে বিনিয়োগ করবে বিদেশি রাষ্ট্র। যারমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি এককভাবে চারশ’ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার কথা জানিয়েছে। বাকি ১১শ কোটি টাকাই বিদেশি সংস্থা বিনিয়োগ করবে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির কর্তারা।
প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, নতুন এ প্রকল্পের পুঁজি সংগ্রহের লক্ষ্যে পুঁজিবাজার থেকে কোম্পানিটি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে দেড়শ’ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। যা ইতোমধ্যে বিল্ডিংয়ের জন্য পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ (বিএসইসি) অনুমোদনও দিয়েছে। এসব সংগৃহীত অর্থে নতুন যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং ব্যবসা সম্প্রসারণসহ ব্যাংক ঋণ পরিশোধের পাশাপাশি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করা হবে বলেও জানান কর্মকর্তারা।
লুব্রিকেন্টস বাজারের বিপুল সম্ভাবনা দেখে লুব-রেফ ব্যবসা সম্প্রসারণ করতে যাচ্ছে উল্লেখ করে কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, ‘লুব্রিকেন্টস শিল্পে বাংলাদেশকে স্ব-নির্ভর করে বিদেশে রপ্তানি করার লক্ষ্যে উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে চায় লুব-রেফ। ইতোমেধ্যে কর্ণফুলীর পাড়ে নতুন প্রজেক্ট হাতে নেয়া হয়েছে যাতে লুব-রেফের নতুন রিফাইনারি হবে। ইতোমধ্যে নিজস্ব জাহাজ বার্থিয় জেটি গড়তে অনুমোদনও দিয়েছে সরকার। ইন্ডাস্ট্রিয়াল এ থিম পার্ক প্রতিষ্ঠা হলে দেশের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি মানুষের কর্মসংস্থানেরও সুযোগ সৃষ্টি হবে।
এক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, ‘পেট্রোকেমিক্যাল ও লুব্রিক্যান্ট শিল্পে তাদের প্রায় চার দশকের অভিজ্ঞতা। স্থানীয় প্লান্টে বিশ্বমানের লুব্রিক্যান্টস প্রস্তুত করে এরই মধ্যে বাজারের আস্থা অর্জন করেছে লুব-রেফের ব্র্যান্ড ’বিএনও’। স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে লুব্রিকেন্টসের বিপুল সম্ভাবনা দেখে ব্যবসা সম্প্রসারণে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, ২০২৫ সালের মধ্যে লুব্রিকেন্টস বাজারের ২০ শতাংশ স্থান দখল করার লক্ষ্যে আধুনিক পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াচ্ছে লুব-রেফ।
এদিকে, সম্প্রতি ফিনল্যান্ডের একটি কোম্পানির সঙ্গে প্রযুক্তি হস্তান্তরের মাধ্যমে ন্যানো টেকনোলজি সমৃদ্ধ লুব্রিকেটিং অয়েল সামগ্রী উৎপাদন ও বিপণন শুরু করেছে লুব-রেফ। তাছাড়া দেশের বৈদ্যুতিক খাতে অত্যন্ত আমদানি নির্ভর ট্রান্সফরমার অয়েল প্রস্তুত ও সেনটিফিউজিংয়ের মাধ্যমে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করছে বলেও জানান প্রতিষ্ঠানটির এ কর্মকর্তা।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top