করোনাযুদ্ধ: লন্ডনে রোজা রেখে হেঁটে তহবিল সংগ্রহ করছেন প্রবাসী শতবর্ষী দবিরুল

Presentation1-24.jpg

টম মুরের মতো এবার অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছেন আরেক শতবর্ষী দবিরুল ইসলাম চৌধুরী। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ নাগরিকের বয়স ১০০ বছর। জাস্টগিভিং পেজের ছবি। ছবি: সংগৃহীতটম মুরের মতো এবার অর্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছেন আরেক শতবর্ষী দবিরুল ইসলাম চৌধুরী। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ নাগরিক। জাস্টগিভিং পেজের ছবি। ছবি: সংগৃহীত

জাস্টগিভিং ডটকমে পেজ খুলে অর্থ উত্তোলনের এই উদ্যোগ নিয়েছিলেন দবিরুল ইসলাম চৌধুরী। একটি ব্রিটিশ-বাংলাদেশি টেলিভিশন ব্রডকাস্টার চ্যানেল, চ্যানেল এস চালাচ্ছে রমাদান ফ্যামিল কমিটমেন্ট (আরএফসি) কার্যক্রম, এটি মূলত কোভিড-১৯ সংকটের কারণেই চালু করা হয়েছে। এই উদ্যোগের জন্য অর্থ তুলতেই বাগানে হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন দবিরুল।

গার্ডিয়ান বলছে, শুধু এক হাজার পাউন্ড তোলার লক্ষ্য থাকলেও, মানুষের অভাবিত সাড়ায় উৎসাহিত হয়েছেন দবিরুল। রমজান মাসজুড়েই বাগানে হেঁটে হেঁটে তহবিল সংগ্রহের কাজ চালিয়ে যেতে চান শতবর্ষী এই ব্যক্তি।

১৯২০ সালের ১ জানুয়ারি বাংলাদেশের সিলেটে জন্মগ্রহণ করেছিলেন দবিরুল ইসলাম চৌধুরী। ১৯৫৭ সালে তিনি লন্ডনে চলে গিয়েছিলেন। ইংরেজি সাহিত্য বিষয়ে পড়াশোনার জন্য তিনি যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমিয়েছিলেন। এরপর থেকে তিনি যুক্তরাজ্যেই বসবাস করে আসছেন।

দবিরুল ইসলাম চৌধুরী। ছবি ফেসবুক থেকেদবিরুল ইসলাম চৌধুরী। ছবি ফেসবুক থেকে

দবিরুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে আতিক চৌধুরী বিবিসিকে বলেছেন, শুরুতে খুবই ধীরগতিতে হাঁটা শুরু করেছিলেন তাঁর বাবা। পরে আস্তে আস্তে তিনি হাঁটার গতি বাড়িয়েছেন। সমস্যা হলো, এরপর‌ তিনি থামতেই চাচ্ছিলেন না।

জাস্টগিভিং পেজ-এ লেখা আছে, দবিরুল ইসলাম চৌধুরী থাকেন সেইন্ট আলবানসে। একসময় সেখানকার কমিউনিটি নেতা ছিলেন তিনি। স্থানীয় কমিউনিটির বিভিন্ন প্রকল্প সম্পাদনের পাশাপাশি বাংলাদেশের স্বাধীনতাসংগ্রামের সময় দেশের জন্যও তিনি অর্থ উত্তোলন করেছিলেন।

এ ছাড়া দবিরুল একজন বইপ্রেমী। স্থানীয় বুক ক্লাবগুলোয় তিনি নিয়মিত সময় কাটাতে ভালোবাসেন। জাস্টগিভিং পেজে লেখা আছে, দবিরুল একজন কবি এবং তাঁর অনেক কবিতা এরই মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top