থ্যাঙ্ক ইউ ভেরি মাচ, এবার ঢাকা ছাড়ুন: র‍্যাব ডিজি

salo_1570367341.jpg

প্রথম আলো

র‍্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বাইরের ভোটারদের ঢাকা ছাড়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার কারওয়ান বাজারের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি ঢাকাবাসীদের বাইরে বের হওয়ার সময় ছবিযুক্ত পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখার কথাও বলেছেন। কাউন্সিলর নির্বাচনের ক্ষেত্রে কোনো ছিনতাইকারী বা ম্যানহোলের ঢাকনা চোরকে ভোট না দেওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

আজ থেকেই র‍্যাব মাঠে থাকছে। মূলত, র‍্যাব সদস্যরা কোথায় কীভাবে মোতায়েন থাকছেন সে সম্পর্কে জানাতেই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীটির কাছে প্রার্থীদের মধ্যে সংক্ষুব্ধ যে কেউ অন্যায়-অবিচারের অভিযোগ করতে পারবেন বলে জানান।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এত দিন পর্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচনী প্রচার চলেছে। অনেক প্রার্থীর পক্ষে তাঁদের আত্মীয়-স্বজনরা প্রচারে অংশ নিয়েছেন। থ্যাঙ্ক ইউ ভেরি মাচ। আমরা আশা করব এবার আপনারা ঢাকা ছেড়ে চলে যাবেন। অপ্রয়োজনীয় ঢাকা সফর নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে।’ ঢাকা ছেড়ে না গেলে র‍্যাব কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে অবশ্য র‍্যাবের ডিজি বলেছেন, কাউকে জেলে পোরা র‍্যাবের উদ্দেশ্য নয়। প্রকৃত ভোটাররা যেন ঠিকঠাক ভোট দিতে পারে সেটাই নিশ্চিত করতে চাইছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। জরুরি প্রয়োজন, চিকিৎসা, চাকরির সাক্ষাৎকার বা বিদেশ যাত্রার জন্য বাসা থেকে বের হওয়ায় কোনো সমস্যা নেই।

ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বহিরাগত সন্ত্রাসীদের ঢাকায় প্রবেশের যে কথা বলেছেন, সে সম্পর্কে র‍্যাবের কাছে কি খবর আছে এমন প্রশ্নের জবাব তিনি দেননি। বেনজীর বলেন, রাজনীতিবিদদের কথার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি মন্তব্য করা থেকে বরাবর বিরত থেকেছেন। এ দফাতেও তাই থাকবেন। তবে সব ধরনের ঝুঁকি আশঙ্কা তলিয়ে দেখা হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও খেয়াল রাখা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী যেখানে যে আইন প্রযোজ্য, সেখানে সে আইন প্রয়োগ করা হবে। বিরোধীদলীয় প্রার্থীরা ধরপাকড়ের যে আশঙ্কার কথা বলছেন সে সম্পর্কে তিনি বলেছেন, ‘ওরা আশঙ্কা করতে থাক, আমরা নির্বাচন করি।’

ছিনতাইকারী বা ম্যানহোলের ঢাকনা চোরদের ভোট না দেওয়ার অনুরোধ প্রসঙ্গে বেনজীর আহমেদ বলেছেন, নির্বাচিত সবাইকে নিয়ে তাঁরা মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবিরোধী কাজ করতে চান। তাই ভোটারদের প্রতি দেখে-শুনে ভোট দেওয়ার অনুরোধ করেছেন।

র‍্যাবের পাঁচটি ব্যাটালিয়নই আজ থেকে কাজ করবে। নির্বাচনের পরদিন পর্যন্ত র‍্যাবের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এই কাজে বোম ডিসপোজার স্কোয়াড ও ডগ স্কোয়াড মোতায়েন থাকবে। শহরের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চৌকি থাকবে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা, প্রবেশপথ ও ভোটকেন্দ্রের আশপাশে বিশেষ নজর থাকবে র‍্যাবের। ঢাকায় ১২৯টি ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে। প্রার্থীদের র‍্যাব ডিজি আইনকানুন মেনে চলার অনুরোধ করেছেন। কেউ গোলযোগ সৃষ্টির চেষ্টা করলে র‍্যাব তাৎক্ষণিকভাবে নিবৃত্ত করবে বলেও জানিয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top