আজো বান্দরবানের সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ

-সাথে-সারাদেশের-সড়ক-যোগাযোগ-বন্ধ.jpg

দিসিএম ডেস্ক।।

বান্দরবান কেরানীর হাটের বাজালিয়া সড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ায় দ্বিতীয় দিনের মতো  জেলাটির সাথে  বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে সড়ক যোগাযোগ। গতকাল থেকে এই সড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। একই সাথে ওই এলাকায় পানিতে তলিয়ে আছে হাজারো ঘর বাড়ি।

রাস্তায় পানি জমার ফলে আটকে পড়ে আছে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার থেকে ছেড়ে আসা শত শত যানবাহন । এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। এদিকে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় শহরের আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে আশ্রয় নিয়েছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

অন্যদিকে ভারী বৃষ্টিতে প্লাবিত হয়েছে সুনামগঞ্জের চার উপজেলাগুলোর অধিকাংশ গ্রাম। বন্ধ হয়ে গেছে  বিশ্বম্ভপুর-তাহিরপুর সড়কে যান চলাচল। সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, ভারতের মেঘালয়ে প্রচুর বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে ভাটির জনপদ সুনামগঞ্জে। গত তিন দিনের বর্ষণ ও ঢল অব্যাহত রয়েছে। রেকর্ড বৃষ্টিপাতে সুরমা, যাদুকাটা, সোমেশ্বরী, খাসিয়ামারা, চেলাসহ বিভিন্ন সীমান্ত নদ নদীর পানি বাড়ছে।

প্রধান নদী সুরমার পানি মঙ্গলবার ৬টায় সুনামগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমার ১৬ সে. মি. ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ঢল ও বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে নিম্নাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থাপনা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭৫ মি. মি. রেকর্ড বৃষ্টিপাত হয়েছে।

এদিকে ঢল ও বৃষ্টির পানিতে তাহিরপুর উপজেলার প্রধান সড়ক আনোয়ারপুর-শক্তিয়ারখলা পর্যন্ত ডুবে গেছে। এই উপজেলার বাদাঘাট সোহালা সড়ক ভেঙে গেছে। ফলে এই উপজেলার সঙ্গে জেলা সদরের যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু বকর সিদ্দিক ভূইয়া বলেন, প্রবল বৃষ্টিপাত হচ্ছে। রেকর্ড বৃষ্টিপাতে নদ-নদীর পানি বাড়ছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ফেনীর পরশুরামে মহুরী নদীর বাঁধের তিনটি স্থানে দেখা দিয়েছে ভাঙ্গন। এখানেও প্লাবিত হয়েছে কমপক্ষে তিনটি গ্রাম। অপরিবর্তিত  রয়েছে উত্তরাঞ্চলের  লালমনিরহাটের বন্যা পরিস্থিতি, পানিবন্দি আরো ৫ শতাধিক পরিবার|

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top