উখিয়ায় সরকারিভাবে স্থাপিত হবে স্কিল ডেভেলপমেন্ট সেন্টার : ডিসি কামাল

Presentation1-13.jpg

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

উখিয়ায় সরকারি উদ্যোগে খুবই শীঘ্রই স্কিল ডেভলমেন্ট সেন্টার (দক্ষতা উন্নয়ন কেন্দ্র) স্থাপিত হবে। যেসব যুবক-যুবতীরা পড়ালেখা শেষ করে চাকুরি করতে আগ্রহী তাদেরকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রাক পেশাগত দক্ষতা অর্জনের জন্য জন্য এখানে বাস্তবমূখী হাতেকলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।
রবিবার ৭ জুলাই কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বিষয়টি সিবিএন-কে নিশ্চিত করেছেন।

জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন সিবিএন-কে বলেন, শনিবার ৬ জুলাই উখিয়া সরকারি হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত চাকুরি ও দক্ষতা উন্নয়ন মেলা উদ্বোধন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক কে.এম. আবদুস সালাম প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। তিনি উখিয়ার সেই মেলায় চাকরি প্রার্থীদের আগ্রহ দেখে অনেকটা অবাক হন। কিন্তু অধিকাংশ চাুকুরি প্রার্থী রোহিঙ্গা শরনার্থী ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সামান্যতম কোন অভিজ্ঞতা না থাকায় আইএনজিও এবং এনজিও গুলো তাদেরকে চাকুরিতে নিয়োগ দিতে পারছেননা। এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক কে.এম আবদুস সালাম ঢাকায় ফিরে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরেন।
তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গুরুত্বের সাথে আলাপের পর কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেনকে এ তথ্য অবহিত করেন। জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন আরো জানান, সীমান্তবর্তী উপজেলা উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের কারণে এলাকাবাসী নিসন্দেহে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এলাকার বাসিন্দাদের অবশ্যই কর্মসংস্থানের বিষয়টি অতীব গুরুত্ব সহকারে সবাইকে দেখতে হবে। জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন এ প্রসঙ্গে সিবিএন-কে আরো বলেন, তবে এটাও ঠিক যে, শিক্ষিত বেকার যারা রয়েছেন, তাদের কোনো না কোনো বিষয়ে অবশ্যই দক্ষতা থাকা দরকার। প্রার্থীর দক্ষতা থাকলে কোথাও চাকরিরও অভাব হয় না। রোহিঙ্গা শরনার্থীর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা উখিয়ায় এরকম একটি স্কিল ডেভলপমেন্ট সেন্টার স্থাপিত হলে এলাকার শিক্ষিত বেকারগণ সহজে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন। জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন কক্সবাজার জেলাবাসীর অভিভাবক হিসাবে এলাকার স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিয়ে বলেন, শিক্ষার্থীদের নিয়মিত চলমান লেখাপড়া বাদ দিয়ে নয়, লেখাপড়া শেষ করেই কেবল চাকরির জন্য তৈরি হতে হবে। কেননা, লেখাপড়ার সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না। লেখাপড়া শেষ করলে চাকরি মিলবে। কিন্তু লেখাপড়া শেষ না করে একবার চাকরিতে প্রবেশ করলে পুনরায় তাকে পেছনে ফিরে অসমাপ্ত লেখাপড়া করার সুযোগ থাকেনা। প্রসঙ্গত, শনিবার ৬ জুলাই উখিয়া সরকারি হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত চাকুরি ও দক্ষতা উন্নয়ন মেলায় চাকুরি প্রার্থীরা আশানুরূপ সংখ্যায় চাকুরির নিশ্চয়তা না পাওয়ায় স্থানীয় লোকজন বেশ হতাশ হয়ে পড়ে। এ নিয়ে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে। এ অবস্থায় উখিয়াতে স্কিল ডেভেলপমেন্ট সেন্টার স্থাপনের সুখবরটি আসে। যা উখিয়া-টেকনাফবাসীর জন্য হতাশার মধ্যে একটা প্রাপ্তি।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top