কক্সবাজার জামায়াতের ধনকুবেররা এখন ‘জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ’এ!

IMG20190522175641.jpg
জাহেদ হোসেন
সাবেক শিবির নেতা মুজিবুর রহমান মঞ্জুর গঠিত জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ নামক দলে যোগ দিতে কক্সবাজার জেলার সাবেক বর্তমান শতাধিক জামায়াত সংশ্লিষ্ট ধনকুবের এখন মরিয়া হয়ে উঠেছে। এক্ষেত্রে তারা সরকারের পূর্ণ আনুকুল্য ও সহযোগীতা নিয়ে নিজেদের ব্যবসা বাণিজ্য টিকিয়ে রাখার আকাঙ্খাই বেশি ফুটে উঠেছে বলে মত দিয়েছে স্থানীয় লোকজন। ২২ মে বুধবার বিকেল ৫টায় কক্সবাজারের তারকা মানের হোটেল ওশ্যান প্যারাডাইসের সম্মেলণ কক্ষে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ নামের দলটি। এতে উপস্থিত হয়ে রাজনীতি সচেতন বেশিরভাগ লোকজন এমন মন্তব্য করেছে।
উপস্থিত লোকজনের মতামত থেকে আরও জানা যায়,  জামায়াত-শিবিরসহ দেশের চলমান বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে বহিস্কৃত, হতাশাগ্রস্থ ও দলছুট নেতাকর্মীদের নিয়ে গঠিত ‘জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ’ নামের সংগঠনটি কক্সবাজার শহরে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে।
মতবিনিময়ে গণমাধ্যমকর্মীদের এক প্রশ্নের জবাবে সংগঠনটির প্রধান উদ্যোক্তা মুজিবুর রহমান মঞ্জু বলেন- এটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জনসাধারণের অধিকার আদায়ে কাজ করে যাবে। এক্ষেত্রে সরকারের আনুকুল্য পেতেও মরিয়া হয়ে উঠেছে সংজ্ঞবদ্ধ এই গ্রæপটি। বক্তব্যে তিনি আরও বলেন- আমরা কাউকে ক্ষমতায় নিয়ে যেতে বা ক্ষমতা থেকে নামাতে রাজনীতি করছি না। রাজনীতিতে একটি ভিন্ন প্লাটফর্ম তৈরি করে সকল ধর্মী ও মতাদর্শীদের সাথে নিয়ে সরকারকে সব ধরণের সহযোগীতা অব্যাহত রেখে জনগণের অধিকার আদায়ে আন্দোলন সংগ্রাম করে যাবে।
চক্রটির উদ্যোক্তা জামায়াতীদের মামলার অন্যতম আইনজীবি তাজুল ইসলাম বলেন- এই সংগঠন সকলের জন্য কাজ করবে। এমনকি আজকের অনুষ্ঠানে কোনো নারী সদস্যের উপস্থিতি না দেখে খুবই হতাশা প্রকাশ করেন। সামনের দিনগুলোতে অবশ্যই নারী সদস্যদের উপস্থিতি কামনা করেছেন তিনি।
জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ’র কক্সবাজার জেলার আহŸায়ক সরওয়ার সাঈদ জানান- ‘জন আকাঙ্খার বাংলাদেশ’ এটি একটি কনসেপ্ট। পরবর্তীতে সকল মতের মানুষের সাথে পরামর্শ করে মতামত নিয়ে নাম দিয়ে দল গঠন করা হবে। তবে এক্ষেত্রে সরাসরি আওয়ামীলীগে যোগদানের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কোনো সদুত্তোর দেননি সংগঠনটির নেতৃস্থানীয় কেউ।
স্থানীয় সংবাদকর্মীদের মন্তব্য- কক্সবাজার হলো জামায়াতের বাণিজ্যিক আখাড়া। সরকারের চরম রোষানলের কারণে তারা তাদের ব্যবসা বাণিজ্য সহজভাবে চালিয়ে নিয়ে যেতে পারছিলো না। একারণে বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট সকল নেতাকর্মী জামায়াতের সাইনবোর্ড পরিত্যাগ করে একটি প্লাটফর্ম তৈরি করেছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত লোকজনদের দেখে তাই মনে হলো। এদের বেশিরভাগই ধনকুবের এবং শিল্পপতি।
মতবিনিময় সভায় আগত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কেউ কেউ মতামত দেন- আদর্শ ছাড়া কোনো আন্দোলন দানা বেঁধে উঠার কোনো সুযোগ নেই। সুতরাং শুধুমাত্র অধিকার আদায়ের কথা বলে সংগঠন তৈরি করা নেহাতই শিশুতুল্য আচরণ ছাড়া কিছু নয়। এভাবে সরকারের আনুকুল্য নিয়ে জনগণের অধিকার আদায়ে কতটুকু পারদর্শীতা দেখাতে সক্ষম হবে দলটি তা এখন সময়ই বলে দিবে।
উক্ত মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সাবেক সেনা কর্মকর্তা আব্দুল ওয়াহাব, সাবেক কেন্দ্রীয় শিবির নেতা রেজাউল করিম, সাবেক শিবির নেতা জাহাঙ্গীর কাশেম, এডভোকেট গোলাম ফারুক খান কায়সার, শ্রমিক নেতা জেবর মুল্লুক, এডভোকেট ছিদ্দিকী, এডভোকেট এনামুল হক, ছৈয়দ করিম, এড. নুরুল ইসলাম, শামসুদ্দিন মানিক, সাবেক জেলা শিবির নেতা জাহেদুল করিম, খোরশেদ আলম বুলেট, সাতকানিয়া দোকান কর্মচারী ফেডারেশনের সেক্রেটারী সাহাব উদ্দীন, শাহীন মোহাম্মদ, কলিম উল্লাহ ও নুরুল আবছার সাজু প্রমুখ।
আপনার মন্তব্য লিখুন
Top