সাবেক কাউন্সিলর চম্পা কারাগারে

Screenshot_2019-04-20-01-53-41-813_com.facebook.katana.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক :

চেক জালিয়াতির অভিযোগের মামলায় কক্সবাজার পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর চম্পা উদ্দিনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারী হওয়ার পর। গত ১৫ এপ্রিল জেলা সাব জজ-৩ আদালতে আত্মসমর্পন করতে গেলে দীর্ঘদিন পলাতক থাকায় আদালাত থাকে কারাগারে প্রেরণ করে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,শহরের তারাবনিয়াছড়া এলাকার মৃত এইচ.এম শামশুদ্দিনের স্ত্রী সাবেক কক্সবাজার পৌর কাউন্সিলর চম্পার বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতি মামলায় হাইকোর্ট থেকে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি হয়েছে। সিআর ৫৮৪/১০ এসটি ১৯/১১ এনআইএক্টের ১৩৮ ধারা মামলা মূলে পলাতক থাকা সাবেক পৌর কাউন্সিলর চম্পার বিরুদ্ধে উক্ত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়।

মামলার বাদী রোকসানা পারভীন জানান, ব্যবসার কথা বলে ৩১ লক্ষ টাকা নিয়ে উক্ত টাকা চাইতে গিয়ে নানা ভাবে আমাকে হয়রানি করেন চম্পা। এমনকি টাকা পরিশোধ না করে ব্যাংকের চেক ধরিয়ে দেন। কিন্তু উক্ত একাউন্টে টাকা না থাকার কথা বললে টাকা না দিয়ে উল্টো নানা ভাবে হুমকি-ধমকি দিতে থাকেন।

এর পরে আমি চেক জালিয়াতি মামলা দায়ের করি আদালতে। অতিরিক্ত জেলা জজ আদালতে চেক প্রতারণার বিষয়টি প্রমানিত হওয়ায় এক বছরের সাজা ও আমার টাকা পরিশোধ করার আদেশ দেন। কিন্তু চম্পা উক্ত আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালত হাইকোর্টে গিয়ে জামিনের আবেদন করলে উচ্চ আদালত দীর্ঘ শুনানী শেষে সরকারে কোষাগারে ৫ লাখ টাকা জরিমানা প্রদান অনাদায়ে এক বছরের জেল ও বাদীর ১০ লাখ ৭৫ হাজার পরিশোধ পূর্বক নিদিষ্ট আদালতে ৩০ দিনের মধ্যে আত্মসমর্পন করার নিদের্শ দিলেও এক বছরে পার হয়ে যায়। তবুও নিদিষ্ট সময়ে আদালতে আত্মসমর্পন না করায় মহামান্য হাইকোর্ট চম্পার বিরুদ্ধে আদালত এক বছরের কারাদন্ড এবং গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।
সে গ্রেফতারী পরোয়ানা বিত্তিতে গত ১৫ এপ্রিল অভিযুক্ত চম্পা উদ্দিন প্রায় এক বছর পরে আদলাতে আত্মসমর্পন করতে গেলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠিয়ে ন্যায় বিচার করেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top