চকরিয়ায় অতর্কিত আগুনে পুড়েছে বাস!

Presentation1-125.jpg

চকরিয়া প্রতিনিধি:

চকরিয়ায় সাতসকালে অতর্কিত আগুনে পুড়েছে মহাসড়কে দাঁড়ানো সোহাগ এক্সপ্রেস নামের একটি যাত্রীবাহি বাস। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার মাতামুহুরী সেতুর উত্তরে নাছির উদ্দিনের দোকানের সামনে ঘটেছে এ ঘটনা। বাস গাড়িতে আগুন লাগার খবর পেয়ে চকরিয়া ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাৎক্ষনিক আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হলেও ততক্ষনে গাড়িটির ভেতরের অংশ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

অগ্নিকা-ের এ ঘটনায় প্রাথমিকভাবে বাসটির প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে দাবি করেছেন বাসটির পরিচালক চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের জিদ্দাবাজার এলাকার মৃত আক্তার আহমদের ছেলে মো.ওসমান গণী। অতর্কিত অগ্নিকা-ের এ ঘটনায় নির্বাক হয়ে পড়েছেন বাসটির পরিচালকসহ স্থানীয় পথচারী প্রত্যক্ষদর্শী লোকজন।

ওসমান গণী বলেন, ঢাকার ১০ দিলকোশা কমার্শিয়াল এলাকার বাসিন্দা গাজী মাকদুম হোছাইনের নামীয় উত্তরা ফাইনার্স এন্ড ইনভেস্টম্যান্টস এর মালিকানাধীন সোহাগ এক্সপ্রেস নামের যাত্রীবাহি ( নং ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৫৪৮৪) বাসটি তিনি পরিচালনা করে আসছেন। দীর্ঘদিন ধরে বাসটি কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যাত্রী পরিবহনে নিয়োজিত রয়েছে।

তিনি বলেন, কিছুদিন আগে বাসটি যান্ত্রিকভাবে ক্রুটি দেখা দেয়ায় মাতামুহুরী সেতুর উত্তরে নাছির উদ্দিনের দোকানের সামনে দাঁড়ানো অবস্থায় রাখা হয়েছে। এরই মধ্যে গতকাল সকাল আনুমানিক ৯টার দিকে অতর্কিত বাসটিতে আগুন লেখে যায়। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক চকরিয়া ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হলেও ততক্ষনে গাড়িটির ভেতরের অংশ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে বাসটির প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে জানান পরিচালক ওসমান গণী।

মহাসড়কে দাঁড়ানো বাস গাড়িতে ঠিক কী কারণে আগুন লেগেছে সেই বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেননি পরিচালক ওসমান গনী। তবে স্থানীয় লোকজনের ধারণা, মহাসড়কের চলাচলরত অন্য কোন যানবাহন থেকে কোন যাত্রী অথবা পথচারী সিগারেট ছুড়ে মারলে তা গাড়ির ভেতরে ঢুকে পড়ে আগুনের ঘটনাটি সংগঠিত হতে পারে।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top