মিডিয়াতে ভাইরাল রামুর ছবিটি

maxresdefault-2.jpg

প্রয়োজন ছোট্ট একটি ব্রিজ। কিন্তু তা না হওয়ায় গ্রামের মৃত ব্যক্তিদের দাফন করতে ভেলায় ভাসিয়ে নিতে হয়। স্বাধীনতার পর থেকে প্রায় ৫০ বছর এভাবে লাশ ভাসিয়ে নিচ্ছে কক্সবাজারের রামু উপজেলার কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের মনিরঝিল গ্রামের মানুষ। সম্প্রতি ওই গ্রামের এক ব্যক্তির লাশ ভাসিয়ে নেয়ার দৃশ্য সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। চলছে তুমুল সমালোচনা।

জানা যায়, গত ২৫ জানুয়ারি ওই গ্রামের আব্দুল বারির পুত্র মনির আহম্মদের মৃত্যুর পর ভেলায় ভাসিয়ে মরদেহ দাফনের জন্য নেয়া হয়। ওই দৃশ্যের ছবি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। কয়েক দিন ধরে দেশ জুড়ে বিষয়টি আলোচিত হচ্ছে। তবে এই ঘটনা গ্রামটির জন্য নতুন নয়। কোনো মানুষ মারা গেলে এভাবেই তার লাশ নেয়া হয় অন্য পাড়ে।

শুধু লাশ দাফন নয়, গ্রামের লোকজনের যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। সামাজিক মাধ্যমে সমালোচকরা বলছেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য, সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা পিআইও অফিসসহ যারা পল্লী এলাকায় গ্রামীণ অবকাঠামো ও যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করে থাকেন এখানে তাদের দায়িত্ব রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কক্সবাজারের রামু উপজেলায় কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের অবহেলিত মনিরঝিল গ্রামে স্বাধীনতার পর থেকে কোনো উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। সোনাইছড়ি খালের উপর একটি ছোট কালভার্টের অভাবে ওই এলাকাটি এখনো বিচ্ছিন্ন রয়ে গেছে। সামান্য একটি কালভার্টের অভাবে সোনাইছড়ি গ্রামে কোন মানুষ মারা গেলে মৃত ব্যক্তিকে কবরস্থানে নিতে স্বজনদের ভেলায় করে সাঁতার কেটে নিয়ে যেতে হয়।

রামুর কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুর মালেক জানিয়েছেন, সোনাইছড়ির মনিরঝিল গ্রামটি সামান্য একটি কালভার্টের অভাবে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে রেয়েছে। এই গ্রামে মানুষের জন্য একটি ছোট ব্রিজ বা কালভার্ট করে দিলে জনদুর্ভোগ আর হবে না। মরদেহ নিয়েও এমন দুর্ভোগ পোহাতে হবে না তাদের।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top