সিলেটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে সংঘর্ষ

FB_IMG_1532938934313.jpg

দিসিএম ডেস্ক

সিলেট: সিলেট সিটি নির্বাচনে বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থক ও পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের ফলে দুটি কেন্দ্র ভোটগ্রহণ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

নগরীর পাঠানটুলা এলাকায় শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল (এমএ) মাদরাসা কেন্দ্রে বিএনপি-জামায়াতের প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দেয়া। প্রতিবাধে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে পুলিশ। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

বেলা সোয়া ১১টার দিকে এ সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পর থেকে ওই ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়। পরিস্থিতি বর্তমানে পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

১১টার দিকে নগরীর কাজী জালালউদ্দিন বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাল ভোট ও কেন্দ্র দখল নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। এতে আহত হয়েছেন প্রায় ২০ জনের বেশি ভোটার। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে কয়েকজন গুলিবিদ্ধ বলেও দাবি করা হয়েছে।

সংঘর্ষের পর ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ সংখ্যক পুলিশ অবস্থান নিয়েছেন।

দুপুরে ২৪ নং ওয়ার্ডের গাজী বুরহানউদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র জোরপূর্বক কেন্দ্র দখল ও জাল ভোট, সকালে সাড়ে ৮টার দিকে ২০নং ওয়ার্ডের এমসি কলেজ কেন্দ্র, ১১নং ওয়ার্ডের লামাবাজার কেন্দ্র ও ৭নং ওয়ার্ডের দুটি কেন্দ্র থেকে ধানের শীষ ও টেবিল ঘড়ি মার্কার এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

নগরীর টিলাগড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ছাত্রলীগের কর্মীদের বিরুদ্ধে জোর করে ব্যালটে সিল মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকাল ১১টার দিকে ধানের শীষের এজেন্টরা বাধা দিলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে আধা ঘণ্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকার পর সাড়ে ১১টায় পুনরায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ফিরোজ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

সকাল পৌনে ১০টার দিকে কদমতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে একজনকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

৫নং ওয়ার্ডে এক কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকরা খাসদবীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জালভোট দেয়ার চেষ্টাকে কেন্দ্র করে আধা ঘণ্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ রয়েছে। ১২০টি সিল মারা ব্যালট বাক্সে ভরা হয়েছে এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়।

এজেন্টদের বের করে দিয়ে নগরীর প্রায় অধিকাংশ কেন্দ্র দখল করে জাল ভোটের উৎসব চলছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক ও জামায়াতের মেয়র প্রার্থী এহসানুল মাহবুব জুবায়ের।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top