টেকনাফ উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ট শিক্ষক বেগম নুরজাহান আজাদ

FB_IMG_1532801592154.jpg

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ
সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে টেকনাফ উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ট শিক্ষক হিসাবে পুরস্কৃত হয়েছেন টেকনাফ এজাহার গার্লস হাইস্কুলের শিক্ষিকা বেগম নুরজাহান আজাদ। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮ উপজেলা পর্যায়ে বাছাইয়ে তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ছিল ৭২।
জানা যায়, শনিবার ২৮ জুলাই দুপুরে টেকনাফ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ উপলক্ষ্যে অনুষ্টিত মতবিনিময় সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনুষ্টানিকভাবে বেগম নুরজাহান আজাদের হাতে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট তুলে দেন। এতে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোঃ রবিউল হাসান। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য ও টেকনাফ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ শফিক মিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ স্কাউটস কক্সবাজার জেলা সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল-মামুন। অনুষ্টানের সার্বিক সমন্বয়ক ও সঞ্চালক ছিলেন একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ নুরুল আবসার। স্বাগত বক্তব্য দেন পানখালী সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাহমদুর রহমান। বক্তব্য রাখেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী, টেকনাফ সরকারী ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শেখ জয়নাল আবেদীন, মৌলভীবাজার জমিরিয়া দারুল কুরআন আলীম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওঃ ফরিদুল আলম, সাবরাং হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মুফিজ-উদ-দৌলা, হ্নীলা মডেল সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক এরশাদুর রহমান। এ অনুষ্টানে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮ উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ট মোট ৬৪টি পুরস্কার বিতরণ করা হয়। টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন ‘উপজেলা পর্যায়ে স্কাউট/কাব কার্যক্রম গতিশীল করার লক্ষ্যে প্রতিষ্টান প্রধান ও স্কাউট/কাব শিক্ষকদের মতবিনিময় সভা’ শীর্ষক এ অনুষ্টানের আয়োজন করে।
উল্লেখ্য, উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ট শিক্ষক হিসাবে পুরস্কারপ্রাপ্ত টেকনাফ এজাহার গার্লস হাইস্কুলের শিক্ষিকা বেগম নুরজাহান আজাদের জন্ম টেকনাফের কায়ুকখালীপাড়ায় ১৯৬৬ ইংরেজীর ২০ জানুয়ারী। হাজী ছৈয়দ আলমের (বর্তমানে প্রয়াত) সন্তানদের মধ্যে তিনি সকলের বড়। তৎসময়ে কড়া রক্ষণশীল টেকনাফে নারী শিক্ষার বেহাল অবস্থা ছিল। তিনি সকল বাধা উপেক্ষা করে ১৯৮১ ইংরেজী এসএসসি, ১৯৮৩ ইংরেজী এইচএসসি, ১৯৮৯ সনে বিএ, ১৯৯৩ সনে বিএবিএড এবং ২০০৭ সালে ইসলামিক স্টাডিজে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। তিনিই সর্বপ্রথম টেকনাফের মেয়ে হিসাবে ১৯৮৫ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী শিক্ষক পদে টেকনাফ এজাহার গার্লস হাইস্কুলে যোগদান করে একাধারে সুদীর্ঘ ৩৪ ধরে সুনাম ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি বিবাহিত, ১ ছেলে ১ মেয়ের জননী। ছেলে-মেয়ে দু’জনই উচ্চ শিক্ষায় অধ্যয়নরত। তাঁর স্বামী ডাঃ আজাদ মোহাম্মদ নুর হোসেন হ্নীলা হাসপাতালে কর্মরত। ##

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top