শহরের কুতুবদিয়াপাড়ায় পানিতে পড়ে এক শিশুর মৃত্যু

FB_IMG_1532152297587.jpg

দিসিএম ; কক্সবাজার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কুতুবদিয়াপাড়ায় গতকাল ২০-৭-১৮ইং রোজ: জুমাবার পানিতে পড়ে মো. রুহুল কাদের (৭) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। জানা যায়, সে নাজিরারটেক মৎস্য সমিতির সেক্রেটারী জনাব, আতিক উল্লাহর মেজ বোনের ছেলে। মো. রুহুল কাদের (৭) গতকাল দুপুর ১২টার সময় বড় ভাইয়ের সাথে মাছ ধরতে পার্শ্ববর্তী নদীতে গেলে সেখানে সে নিখুঁজ হয়।

অনেক খুঁজা-খুঁজির পর মাগরিবের আযানের সময় তাকে মৃত অবস্থায় ঐ নদীতে পাওয়া যায় যেখানে তারা মাছ ধরতে গিয়েছিল (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত দেহ পেয়ে তার পরিবারে তাৎক্ষণিক স্বজনদের আহাজারিতে শোকের ছায়া নেমে আসে।

পরে স্থানিয় কবরস্থানে নামাজে জানাজা-পূর্বক তাকে দাফন করা হয়। সে দারুল কুতুব একাডেমীর ২য় শ্রেণির মেধাবী ছাত্র বলে জানা গেছে। শোকাহত পরিবারের প্রতি ওয়ার্ডবাসির খবরের পক্ষ থেকে গভীর সমবেদনা প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে, এলাকার সচেতন মহলের সাথে কথা বলে জানা গেছে; এই বছর বেশি পরিমাণ খাল থেকে মাটি উত্তোলন করার কারণে প্রতিনিয়ত এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটছে। ১নং ওয়ার্ডের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ এম. এজাবত উল্লাহ কুতুবী বলেন; ১নং ওয়ার্ডের মাঝখান দিয়ে যে খাল বয়ে গেছে তার বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে মাটি উত্তোলনের কারণে এলাকার পরিবেশের ভারসাম্য ভীষণভাবে নষ্ট হয়েছে যার ফলে, প্রতিনিয়ত আমাদের এই ধরনের ঘটনার সাক্ষী হতে হচ্ছে।

মমিনুল ইসলাম জানান, খাল থেকে যত্রতত্র মাটি উত্তোলনের ফলে খালে যে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয় তাতে পলি মাটি জমে থাকে, এমতাবস্থায় সেখানে যে কেউ পড়লে সে গর্তের গভীরে ডুকে যায়। পলি মাটির কারনে সে আর উপরে উঠে আসতে পারেনা ফলে তার মৃত্যু হয়। তারা এলাকার বিশিষ্টজনকে এ ব্যাপারে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, এ নিয়ে মাসের ব্যবধানে তিনটি মৃত্যুর সংখ্যা গুনতে হয়েছে ১নং ওয়ার্ডবাসিকে।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top