চেয়ারের চেয়ে মানুষের রক্তের দাম অনেক বেশী -মেয়র প্রার্থী রুহুল আমিন সিকদার

IMG_20180721_055326.jpg

দিসিএম

আসন্ন কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে হবে কমিশনকে জেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক ও লাঙ্গল প্রতীকে মেয়রপ্রার্থী রুহুল আমিন সিকদার।

তিনি বলেন, আগামী ২৫ জুলাই নির্বাচনে চেয়ারের চেয়ে মানুষের রক্তের দাম অনেক বেশী। ক্ষমতার জন্য কারো রক্ত ঝরুক, মায়ের বুক খালি হোক- তা আমার দল জাতীয় পার্টি ও আমি চাইনা। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরী করতে হবে, ভোটের অন্তত ৪৮ ঘন্টা আগে সকল ভোটকেন্দ্রের আশ পাশে নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে। নির্বাচনী এলাকায় বহিরাগত অনুপ্রবেশ ঠেকাতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ভোটকেন্দ্র প্রভাবমুক্ত রাখতে সিসি ক্যামেরা ও নির্বাচনী এলাকায় সেনা মোতায়েন করতে হবে। এসব দাবী না মানলে জনগণের স্বার্থে আমি কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে পারি।

শনিবার (২১ জুলাই) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন অনিয়মের আশংকার কথাটি জানিয়েছেন বিরোধী দলের এই মেয়রপ্রার্থী। কক্সবাজার শহরের আলীর জাঁহালস্থ প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়।

রুহুল আমিন সিকদার আশংকা প্রকাশ করে বলেন, ২৫টি ভোটকেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার করবে সরকারী দলের নৌকার প্রার্থী। ইতোমধ্যে তার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। সাধারণ ভোটারদের মাঝে ভীতি তৈরী হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে রুহুল আমিন সিকদার ২০ দফা দাবী সম্বলিত নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেন।

পৌর নির্বাচনের চিত্র তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট মো. তারেক। তিনি বলেন, সরকার চাইলে সুষ্ঠু ভোটের আয়োজন করতে পারে। সব কিছুই তাদের সদিচ্ছার উপর নির্ভরশীল। আমরা চাই কক্সবাজারে একটি প্রভাবমুক্ত ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা জাপার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রুহুল কাদের শিলু, সায়মুন সংসদের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির চেয়ারম্যান প্রভাষক নুরুল আবছার সিকদার, সায়মুন সংসদের সাবেক সভাপতি নুরুল ইসলাম ভুট্টু, ওলামা পার্টির জেলা সভাপতি মাওলানা শফিউল্লাহ জিহাদী, জাতীয় ছাত্র সমাজের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য জিয়াবুল হক, সায়মুন সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুশ শুক্কুর, জাতীয় ছাত্র সমাজ টেকনাফ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মুফিজুর রহমান, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, পৌরসভা নির্বাচনে ৫ মেয়র পদপ্রার্থীসহ মোট প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ৮৬ জন। ১২ টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৮৩ হাজার ৭২৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ৪৪ হাজার ৩৭৩ জন ও মহিলা ভোটার রয়েছেন ৩৯ হাজার ৩৫৫ জন। ১২ ওয়ার্ডে মোট ভোটকেন্দ্র সংখ্যা ৩৯ টি।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top