স্কুলে সহপাঠীদের মধ্যে ঝগড়ার জের কক্সবাজারে অভিভাবকের হাতে খুন তৃতীয় শ্রেণীর এক ছাত্র

FB_IMG_1531389105143.jpg

দিসিএম

শহরে স্কুলে সহপাঠীদের মধ্যেঝগড়াকে কেন্দ্র করে অভিভাবকের হাতে একশিশু খুন হয়েছে। তার নাম সাহাব উদ্দিন। সেশহরের বিজিবি ক্যাম্প এলাকার মৃত ফজলহুদার ছেলে এবং লারপাড়ার সরকারিপ্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র।গতকাল বুধবার (১১ জুলাই) বিকেল পাঁচটারদিকে বিজিবি ক্যাম্প বিএডিসি খামার সংলগ্নএলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
সূত্র জানায়, সাহাব উদ্দিন ও তার বোনেরমেয়ে সাজিয়া সুলতানা লারপাড়া সরকারিপ্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণীতে পড়ে। বুধবারবিকেলে স্কুলে সাজিয়া সুলতানাকে অপরএক মেয়ে সহপাঠী মুখে বালি নিক্ষেপ করে।পরে সাহাব উদ্দিন ক্ষিপ্ত হয়ে ওই সহপাঠীকেচড় মারে। এই ঘটনা শুনে সাহাব উদ্দিনকেমারার জন্য স্কুলের বাইরে ওঁৎ পেতে থাকেওই সহপাঠীর দুলাভাই শফিকুল ইসলাম (২৮) সহ কয়েকজন যুবক। পরে স্কুল ছুটি হলেবাড়ি ফেরার পথে শিশু সাহাব উদ্দিনকেধাওয়া করে শফিকুল ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা।দৌড়ে পালানোর এক পর্যায়ে বিএডিসিখামার এলাকায় পড়ে যায় শিশু সাহাবউদ্দিন। এরপর তাকে বুকের ওপর উপর্যুপরিলাথি ও ঘুষি মেরে আঘাত করা হয়। পরে একসিএনজি ড্রাইভার তাকে উদ্ধার করেকক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলেকর্তৃব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
সিএনজি ড্রাইভার মোস্তাফিজুর রহমানবলেন, ‘টার্মিনাল থেকে শহরে প্রবেশের সময়বিএডিসি খামার এলাকায় রাস্তার পাশেসাহাব উদ্দিন নামের ওই শিশুকে মাটিতেপড়ে থাকতে দেখি। এসময় সেখানেহত্যাকা–ে অভিযুক্ত শফিকুলও উপস্থিতছিলেন। পরে তাকে হাসপাতালে আনা হলেকর্তৃব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’
তিনি আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে সাহাবউদ্দিনকে হাসপাতালে নেওয়ার সময়কৌশলে শফিকুলকেও নিয়ে যাই। পরেনিহতের পরিবারের লোকজন শফিকুলইসলামকে হাসপাতাল পুলিশের সহায়তায়আটকে রাখে। এক পর্যায়ে পুলিশ তাকেআটক করে থানায় নিয়ে যায়।
নিহতের বড় বোন সেলিনা আক্তার বলেন, সাহাব উদ্দিনের অন্যান্য সহপাঠীরা বাড়িতেএসে ঘটনার খবর দেয়। এরপর হাসপাতালেএসে দেখেন তার ভাই মারা গেছে। তুচ্ছঘটনাকে কেন্দ্র করে শফিকুল ও তারসাঙ্গপাঙ্গরা সাহাব উদ্দিনকে হত্যা করেছেবলে দাবি করেন তিনি। আটক শফিকুলইসলাম লারপাড়া এলাকার মাসুদ মিয়ারছেলে।
পুলিশ সূত্র জানায়, হাসপাতালে নিয়ে আসারসময় সিএনজি ড্রাইভারের সাথে হত্যাকা–েঅভিযুক্ত শফিকুল ইসলামও ছিল। পরেনিহতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতেহাসপাতাল পুলিশ শফিকুলকে আটক করে।প্রকৃত ঘটনার জানার জন্য তাকেজিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি(অপারেশন) মাইন উদ্দিন বলেন, নিহতশিশুর শরীরের কোনো ধরণের আঘাত দেখাযায়নি। সম্ভবত শরীরের ভেতর জখমহয়েছে। ময়নাতদন্তশেষে বিস্তারিত জানাযাবে।

এদিকে , আজ দুপুর থেকেেড়  বিজিবি ক্যাম্প বিএডিসি খামার সংলগ্ন এলাকায়  ছাত্র সাহাব উদ্দিন কে হত্যার প্রতিবাদে, খুনি শফিকের  দৃষ্টান্ত   বিচার ও    ফাসি চেয়ে   সড়ক অবরোধ করে রাখে এলাকা বাসি।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top