চার লেইনে উন্নীতকরণের প্রথম ধাপে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ৪টি সেতু নির্মাণকাজ শুরু হচ্ছে শীঘ্রই

10-07-2018-800x420-2.jpg

নিউজ ডেস্ক।।

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক তথা আরাকান সড়কে যানবাহন চলাচলে ঝুঁকি বেড়েছে। পর্যটননগরী কক্সবাজারের সাথে সংযুক্ত দ্বিমুখী এ সড়কে যানবাহনের চাপ কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। সরকার এ বিষয়টিকে অনুধাবন করে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ককে চার লাইনে পরিণত করতে যাচ্ছে। সে ধারাবাহিকতায় শুরুতেই ৪টি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে সহসা।
ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অনুসারে ২৪ ফুট প্রস্থ থাকার কথা থাকলেও এ সড়কের কোথাও ১৮ থেকে ২০ ফুটের প্রস্থ নেই। চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পৌঁছতে তিন ঘন্টার স্থলে চার থেকে পাঁচ ঘন্টা সময় লেগে যাচ্ছে। চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারের দূরত্ব ১৫৫ কিলোমিটার এবং কক্সবাজার থেকে টেকনাফের দূরত্ব ৭৯ কিলোমিটার। জাতীয় মান অনুসারে সড়ক ২৪ ফুট প্রশস্ত থাকার কথা থাকলেও অবৈধ দখলদার, ভাসমান বাজার সড়কের বেশিরভাগ অংশ দখলে নিয়েছে। সড়কের উপর অসংখ্য ছোট-বড় বাজার, গাড়ি রাখার স্ট্যান্ড, দোকানপাট নির্মাণ, আঁকা-বাঁকা বাঁক, মেয়াদ উত্তীর্ণ সেতু ও কালভার্টের কারণে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। সৃষ্ট হচ্ছে দীর্ঘ যানজট। এতে এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। অবৈধ দোকানপাট ও স্টেশন থাকলেও এ ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করছে না সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ফলে সড়কটি সম্প্রসারণ জরুরি হয়ে পড়েছে বলে বিজ্ঞ মহল অভিমত ব্যক্ত করেছেন।
বহদ্দারহাট থেকে কর্ণফুলী সেতু হয়ে শিকলবাহা পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার সড়ক চার লাইনে উন্নীত করার কাজ এগিয়ে চলেছে। সরকার এ ব্যস্ততম চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কটি ৪ লেনে উন্নীত করার ১ম ধাপ হিসেবে ৪টি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হচ্ছে সহসা। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) অর্থায়নে সড়ক ও জনপথ বিভাগ ৩০৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এসব সেতু নির্মাণ করার জন্য দরপত্র প্রক্রিয়া শেষে মূল্যায়ন কাজ এগিয়ে চলেছে। এরপর ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া হবে। একই সঙ্গে এগিয়ে চলেছে জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া।
সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ক্রস বর্ডার ইমপ্রুভমেন্ট নেটওয়ার্ক এর আওতায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে ৪টি সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে। চকরিয়া মাতামুহুরী নদীর ওপর ৬ লেনের সেতুর নির্মাণ কাজ আগামী ৩ মাসের মধ্যে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। অপরদিকে পটিয়ার ইন্দ্রপুল, চন্দনাইশে বরগুনি, দোহাজারী সাঙ্গু সেতুগুলির নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। সেতুগুলি নির্মাণের জন্য মূল্যায়ন প্রক্রিয়া এগিয়ে চলেছে। ইতিমধ্যে সেতুর মাটি পরীক্ষা, স্থান নির্বাচন, ডিজাইন চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানা যায়।
এ ব্রিজ চারটি নির্মাণ করতে তিন বছর সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top