উখিয়ায় আপত্তিকর অবস্থায় প্রবাসীর স্ত্রীকে প্রেমিকসহ আটক করে পুলিশে দিলো জনতা

4581254-660x291.jpg

ডেস্ক নিউজঃ

গভীর রাতে আপত্তিকর অবস্থায় পরকীয় প্রেমিক সহ প্রবাসীর স্ত্রীকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন ।

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের দক্ষিণ সোনাইছড়ি গ্রামে শুক্রবার দিবাগত রাত ৩টায় এঘটনা ঘটেছে। এনিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে প্রবাসীর স্ত্রীর দাবী, তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার।

জানা গেছে, ৬ জুলাই রাত ৩টার দিকে জালিয়াপালং ইউনিয়নের দক্ষিণ সোনাইছড়ি গ্রামের হাজী কবির আহমদের সৌদি প্রবাসী ছেলের নুরুল ইসলামের বসতবাড়িতে এসে তছলিমা আকতার প্রকাশ আঙ্গুরীর সাথে একই এলাকার আবুল কাছির প্রকাশ দুবাই কাছিমের ছেলে মো. ফোরকান (২৮) অসামাজিক ও অনৈতিক কাজে লিপ্ত হন।

ঘটনাটি জানতে পেরে শ্বাশুড়ি আজু মেহের ও পার্শ্ববর্তী লোকজন ও পরিবারের সদস্যরা প্রবাসী নুরুল আলমের বাড়ি থেকে পুত্রবধু ও তার পরকীয় প্রেমিক মো. ফোরকানকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন। পরকীয়ায় জড়িত মো. ফোরকান পালিয়ে যাওয়া চেষ্টা করলে তাকে ধরে ফেলায় প্রবাসী নুরুল ইসলামের ভাই আয়ুবুল ইসলামের হাতে কামড় দিয়ে আহত করে।

ঘটনার খবর পেয়ে জালিয়া পালং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড সদস্য শামশুল আলম সহ এলাকার আরো গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ গভীর রাতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ঘটনা দেখেন এবং দুইজনকে প্রবাসী নুরুল ইসলামের বাড়িতে আটক অবস্থায় রাখেন।

প্রবাসী নুরুল ইসলামের মা আজু মেহের জানান, আটককৃত  তার পুত্রবধূ তছলিমা আকতার আঙ্গুরী ও মো. ফোরকান সহ দুই জনকে জালিয়া পালং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড সদস্য শামশুল আলমের নিকট সোর্পদ করা হয়।

জালিয়া পালং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড সদস্য শামশুল আলম জানান, আপত্তির অবস্থায় আটক প্রবাসীর স্ত্রী আঙ্গুরী ও পরকীয় প্রেমিক ফোরকানকে শুক্রবার বিকালে উখিয়া থানা পুলিশের হাতে সোর্পদ করা হয়।

এঘটনায় প্রবাসী নুরুল ইসলামের মা আজু মেহের বাদী হয়ে পুত্রবধু তছলিমা আকতার আঙ্গুরী, তার পরকীয় প্রেমিক মো. ফোরকানকে আসামী করে উখিয়া থানায় এজাহার দায়ের করেন।

উখিয়া থানার এসআই শাহীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুইকে থানায় সোর্পদ করা হয়েছে। এজাহারও দায়ের করা হয়েছে। তবে প্রবাসী নুরুল ইসলাম তার স্ত্রী আঙ্গুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ না তুলায় তাদেরেকে পরিবারের সদস্য ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

একই কথা স্বীকার করে জারিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যন নুরুল আমিন বলেন, দুই জনকে তার জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

এলাকাবাসি জানান, গত ৮ বছর পূর্বে রামু উপজেলা খুনিয়াপালং ইউনিয়নের হিমছড়ি জাদুঘর এলাকার আবদু সোবহানের মেয়ে তছলিমা আকতার প্রকাশ আঙ্গুরীর সাথে জালিপালং ইউনিয়নের দক্ষিণ সোনাইছড়ি গ্রামের হাজী কবির আহমদের ছেলে নুরুল ইসামের সাথে রেজি: কাবিননামা মুলে সামাজিক ভাবে বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে আরিফুর রহমান সিফাত (৫) নামের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

প্রবাসী নুরুল ইসলামের মা আজু মেহের বলেন, তার ছেলে নুরুল ইসলাম আলাদা হয়ে উঠানে আলাদা ঘর নির্মাণ করে এবং সেখানে বসবাস করে। দীর্ঘদিন ধরে তার ছেলে নুরুল ইসলাম জীবিকার তাগিদে বিদেশে অবস্থান করে।

তিনি বলেন, ছেলে নুরুল ইসলাম প্রবাসে থাকার সুযোগে গত ৭/৮ মাস পূর্বে একই এলাকার মো. ফোরকান তার পুত্রবধু তছলিমা আকতার প্রকাশ আঙ্গুরীর সাথে পরকীয়ায় লিপ্ত হন এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের অজান্তে প্রবাসী নুরুল ইসলামের বসতবাড়িতে এসে মো. ফোরকান ও তছলিমা আকতার আঙ্গুরী অনৈতিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়।

তিনি বলেন, আঙ্গুরীর স্বামী ও সন্তান থাকার পরেও স্বামীর অবাধ্য হয়ে পরকীয়া প্রেমিক মো. ফোরকানের সাথে অবাধে মেলামেশা ও অনৈতিক সম্পর্ক অব্যাহত রাখে। এঘটনায় শ্বাশুড়ী ও প্রতিবেশি লোকজন বাধা নিষেধ সহ প্রতিবাদ করায় উক্ত আঙ্গুরী বাদি হয়ে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত একটি চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন সিআর মামলা নং-১৭২/১৮ (উখিয়া)। এই মামলায় প্রবাসীর নুরুল আলমের ভাই আয়ুবুল ইসলাম ও পাশ্ববর্তী নিরীহ জাফর আলমকে আসামী করা হয়। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

তবে প্রবাসীর স্ত্রী তছলিমা আকতার আঙ্গুরী দাবী করেন, প্রতিপক্ষ লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করায় তারা বিভিন্ন ভাবে ষড়যন্ত্র ও মিথ্যা অপবাধ দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার। নিউজ কক্সবাজার

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top