দুর্যোগের পূর্বাভাস!

Screenshot_2018-07-01-01-57-09-363_com.facebook.katana.jpg

দিসিএম

আসন্ন কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচন শুরুর প্রাক্কালে তানভীর হত্যা একটি অশনী সংকেত। সবার জন্য Alarming. আকস্মিক এই বর্বোরচিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় হতবিহবল হয়ে পড়েছে পৌরসভার শান্তিপ্রিয় জনগণ। পৌরবাসী আতঙ্কিত কিন্তু বিক্ষুদ্ধ। ব্যাক্তিগত নিরাপত্তা ও সামাজিক নিরাপত্তা নিয়ে তাঁরা উদ্ভিগ্ন।

ঘটনার সূত্রপাত কিন্তু নির্বাচনী প্রচারণা। যদিওবা আনুষ্ঠানিক প্রচারণা এখনো কার্যত শুরু হয়নি। এখনো প্রার্থীতা প্রত্যাহার হয়নি। প্রতীক বরাদ্দ হয়নি। নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৫ জুলাই। এতো আগে এই নির্মম হত্যাকান্ড কি কোন পরিকল্পনা বা ষড়যন্ত্রের অংশ কিনা তা’ ভেবে দেখা উচিত। তানভীর একজন অত্যন্ত মেধাবী তরুন। সমাজ সচেতন রাজনৈতিক কর্মী। দেশ ও জাতিকে তাঁর অনেক কিছু দেয়ার ছিল। তাঁর অকাল মৃত্যু পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র্বের অনেক ক্ষতি হলো। এই ক্ষতি পুষিয়ে নেবার নয়।

গতকাল দুপুর আড়াই টায় হাশেমীয়া আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিক, রাজনৈতিক কর্মী, প্রতিশ্রুতিশীল ছাত্রনেতা, অমিত সম্ভাবনাময়ী মেধাবী তরুন এ.এইস.এম তানভীরের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তাঁর জানাযায় কক্সবাজার পৌরসভার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশা ও দল-মত নির্বিশেষে শোকার্ত মানুষের ঢল নেমেছিল। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রথম সারীর নেতৃবৃন্দ সহ মেয়র প্রার্থীরা তানভীরের জানাযায় উপস্থিত ছিলেন। নেতৃবৃন্দরা বক্তব্যও রেখেছেন। বেশিরভাগ নেতৃবৃন্দ আসন্ন পৌর নির্বাচন যেন সুষ্ঠু হয় সেইদিকেই আলোকপাত করেন। সরকারী দলের জেলা সাধারণ সম্পাদক এবং মেয়র প্রার্থী মুজিবুর রহমানও সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যাপারে একমত পোষন করেন। এখন দেখার পালা।

পৌরবাসী তানভীর হত্যার সঠিক বিচার চায়। সকল আসামীদের গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবী জানাচ্ছে। আশাকরি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করবে।

 

রাসেদ মোহাম্মদ আলি, 

সাধারন সম্পাদক, পৌর বিএনপি, কক্সবাজার শহর।

 

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top