দ্বিতীয় রাউন্ডে কে কার মুখোমুখী

unnamed-5.jpg

দিসিএম ডেস্ক

শেষ হলো রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ডের খেলা। ৩২টি দল থেকে নিয়মানুযায়ী অর্ধেক অর্থাৎ ১৬টি দল পেল দ্বিতীয় রাউন্ডের টিকিট। আর বাকি ১৬ দলের বিশ্বকাপ শেষ। দ্বিতীয় রাউন্ডে প্রতিটি দল একটি করে ম্যাচ খেলবে। এখান থেকেই শুরু হবে নকআউট পর্ব। যার মানে হচ্ছে, হারলেই বিদায়।

দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে টিকে থাকবে শেষ ৮ দল, মানে কোয়ার্টার ফাইনাল। তারপর শেষ চার, মানে সেমিফাইনাল ও শেষ দুই দল খেলবে ফাইনালে। নকআউট পর্বের প্রথম ধাপ অর্থাৎ শেষ ষোলোর সেই লড়াই শুরু হবে শুরু হবে আগামীকাল ৩০ জুন শনিবার থেকে। প্রথম দিনেই মাঠে নামছেন ফুটবল বিশ্বের দুই মহাতারকা লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।
ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা আর অন্য ম্যাচে পর্তুগালের মুখোমুখি হবে উরুগুয়ে। ২ জুলাই মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে ব্রাজিল। ৩০ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত শেষ ষোলোর মঞ্চে প্রতিদিন দুটি করে ম্যাচ মাঠে গড়াবে।

দ্বিতীয় রাউন্ডের ফিকশ্চার

৩০ জুন– ফ্রান্স বনাম আর্জেন্টিনা- রাত ৮টা- কাজান
৩০ জুন– উরুগুয়ে বনাম পর্তুগাল- রাত ১২টা- সোচি

১ জুলাই– স্পেন বনাম রাশিয়া- রাত ৮টা- মস্কো
১ জুলাই- ক্রোয়েশিয়া বনাম ডেনমার্ক- রাত ১২টা- নিঝনি নোভগোরাদ

২ জুলাই– ব্রাজিল বনাম মেক্সিকো- রাত ৮টা- সামারা
২ জুলাই– বেলজিয়াম বনাম জাপান- রাত ১২টা- রোস্তভ

৩ জুলাই–সুইডেন বনাম সুইজারল্যান্ড- রাত ৮টা- সেন্ট পিটার্সবার্গ
৩ জুলাই–কলম্বিয়া বনাম ইংল্যান্ড- রাত ১২টা- মস্কো

আরো পড়ুন: রোনালদোকে কিভাবে আটকাবে উরুগুয়ে
রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ ১৬ তে মুখোমুখি হচ্ছে পর্তুগাল বনাম উরুগুয়ে। এই খেলায় স্পট লাইট স্বাভাবিক ভাবেই ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর দিকে। প্রশ্ন হলো, কিভাবে এই বিশ্ব সেরা খেলোয়ারকে আটকে প্রতিপক্ষ দল। তবে উরুগুয়ের ডিফেন্ডার সেবাস্তিয়ান কোয়াতেস বললেন, শুধু রোনালদো নয়, পুরো দলের উপরই নজর থাকবে তাদের।

এরই মধ্যে চলতি বিশ্বকাপে চারটি গোল করে পর্তুগালকে শেষ ষোলোয় নিয়ে এসেছেন রোনালদো। শনিবার সোচিতে কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ইউরো চ্যাম্পিয়নদের প্রতিপক্ষ গ্রুপ পর্বে তিন ম্যাচেই জয় পাওয়া উরুগুয়ে।

বিশ্বকাপে পর্তুগালের পাঁচটি গোলের চারটিই করেছেন অধিনায়ক রোনালদো। তবু কেবল রিয়াল মাদ্রিদের এই ফরোয়ার্ডের ওপর মনোযোগ রাখতে রাজি নন কোয়াতেস।

‘অন্যদের যতটা সমীহর সঙ্গে আমরা প্রতিহত করব, তাকেও তাই। সে বিশ্বজুড়ে সে একজন তারকা। কিন্তু আপনি একজন খেলোয়াড়কে নিয়ে চিন্তা করে নয় বরং পুরো দলকে নিয়ে ভেবেই একটি ম্যাচের জন্য প্রস্তুত হতে পারেন।’

প্রথম ম্যাচে স্পেনের বিপক্ষে দারুণ এক ফ্রি-কিকে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করে দলকে ১ পয়েন্ট এনে দেন রোনালদো। ফ্রি-কিকে রিয়াল মাদ্রিদ তারকার দক্ষতা আলাদাভাবে ভাবাচ্ছে উরুগুয়ের মিডফিল্ডার মাতিয়াস বেসিনোকে।

‘প্রতিপক্ষ দলে যখন একজন ফ্রি-কিক বিশেষজ্ঞ থাকে, আপনাকে ডি-বক্সের কাছাকাছি ফাউল না করার চেষ্টা করতে হবে।’

‘কখনো কখনো এটা অনিবার্য। কারণ একজন মিডফিল্ডার বা স্ট্রাইকার যখন গোলের দিকে এগোতে থাকে, শট নেওয়ার আগেই তাকে আপনার থামাতে হবে।’

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top