সুনামির মতো ইয়াবা পাঠিয়েছে মায়ানমার: কাদের

196201_1.jpg

দিসিএম ডেস্ক

নারায়ণগঞ্জ: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অভিযোগ করে বলেছেন, প্রতিবেশী দেশ মায়ানমার শুধু তাদের দেশ থেকে লাখ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিমদেরই বিতাড়িত করে এদেশে পাঠায়নি পাশাপাশি সুনামির মতো মাদকদ্রব্য ইয়াবাও পাঠিয়েছে।

সারা দেশে মাদকবিরোধী অভিযান এবং অভিযানের সময় তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধের ‘মাদক ব্যবসায়ীদের’ নিহতের ঘটনা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে আজ শুক্রবার নারায়ণগঞ্জে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

সরকারের ঘোষণা মোতাবেক, সারা দেশে মাদকবিরোধী অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ। আজসহ গত ছয়দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীরর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে অর্ধশতাধিক সন্দেহভাজন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

এর মধ্যে গত রবিবার চারজন, সোমবার নয়জন, মঙ্গলবার ১১ জন, বুধবার নয়জন, গতকাল বৃহস্পতিবার নয়জন এবং আজ আরও নয়জন নিহতের খবর এসেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে।

এক প্রশ্নের জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী মাদকের ভয়াবহতার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘মিয়ানমার একদিকে এখানে স্রোতের মতো রোহিঙ্গা পাঠিয়েছে, অন্যদিকে এর সঙ্গে মাদকের স্রোত সুনামির মতো বাংলাদেশে এসেছে। মিয়ানমার শুধু রোহিঙ্গা পাঠায়নি, ইয়াবাও পাঠিয়েছে।

মাদকের বিরুদ্ধে দলমত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের পাশাপাশি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার ডাক দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ভুলতা ফ্লাইওভার সাইড অফিসে আসন্ন ঈদ উপলক্ষে যানজট নিরসন বিষয়ে করণীয় নিয়ে মতবিনিময় করেন মন্ত্রী। এ সময় তিনি বিভিন্ন ইস্যুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন।

মাদকের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কাউকে বর্তমান সরকার ছাড় দিচ্ছে না উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘অভিযোগ যদি প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণ আসে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি যেই হোন, যে জায়গায় থাকেন। জনপ্রতিনিধি হোন, নেতা হোন, বড় রাজনীতিবিদ হোন- কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। রাঘববোয়াল, চুনুপুটি কেউ ছাড়া পাবে না। কেউ ছাড়া পাবে না। নেটে সবাইকে আনা হবে। শুরু হয়েছে, দেখতে পাবেন।’

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অপরাধীর ছাড় নেই’ উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান, আওয়ামী লীগের এক সংসদ সদস্য খুনের মামলায় কারাগারে আছেন, সরকারের তিন মন্ত্রী দুর্নীতির অভিযোগে প্রতিনিয়ত হাজিরা দিচ্ছেন, এক মন্ত্রীপুত্র কারাগারে আছেন।

সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত পৌনে দুই ঘণ্টার মতবিনিময় সভায় নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও হবিগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি) ও সড়ক যোগাযোগবিষয়ক বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে সড়ক ও মহাসড়কের সমস্যাগুলো শোনেন। মন্ত্রী সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন। মহাসড়কগুলোকে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সচল রাখার নির্দেশ দেন তিনি। ঈদে গাড়ি থামিয়ে অর্থ আদায় না করার জন্যও ট্রাফিকদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

এ ছাড়া সভায় নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক এবং নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবুসহ আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

‘তিস্তা চুক্তির সমাধান যেকোনো সময় হয়ে যাবে’

বর্তমান সময়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক সবচেয়ে ভাল অবস্থানে রয়েছে বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। এ সময় তিনি অভিযোগ করেন, ‘ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের তিক্ততার ক্ষেত্রে বিএনপি বহুলাংশে দায়ী।’

তিস্তা চুক্তির প্রসঙ্গ টেনে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সীমান্ত চুক্তির বাস্তবায়নের মতো দুরূহ কাজ, চ্যালেঞ্জিং কাজ যেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি করে ফেলেছেন, সে তুলনায় এটা কোনো সমস্যাই না। এ সমস্যারও সমাধান হবে।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে আজ সকালে পশ্চিমবঙ্গ সফরে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আজ বীরভূম জেলার শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতীর সমাবর্তনে অংশগ্রহণ করেন, পরে তিনি সেখানে ‘বাংলাদেশ ভবন’ উদ্বোধন করেন। এ ছাড়া আগামীকাল শনিবার আসানসোলে কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি লিট ডিগ্রি গ্রহণ করবেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি একসঙ্গে শান্তিনিকেতনে ‘বাংলাদেশ ভবন’ উদ্বোধন করবেন। পরে তাঁরা একান্ত বৈঠকে অংশ নেবেন। শান্তিনিকেতনে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিরও অংশ নেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কলকাতা গেছেন আমি তাঁকে সি-অফ করে এখানে এসেছি। সেখানে নরেন্দ্র মোদি, মমতা ব্যানার্জি থাকবেন। আলাপ-আলোচনা হবে। আমি তো এখানে বসে বলতে পারি না রেজাল্টটা কী হবে? তবে এটা বুঝি, নাহলেও অগ্রগতি হবে।’

‘যেকোনো সময় হতে পারে চুক্তি। চুক্তি যেকোনো সময় হতে পারে। আমাদের মধ্যে যে সম্পর্ক আছে, সেই সম্পর্কের আলোকে এই কথাটা বলছি’, যোগ করেন ওবায়দুল কাদের।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top