অন্তর্বাসে বিশেষ কায়দায় লুকানো ইয়াবা উদ্ধার

FB_IMG_1525686413008.jpg

টেকনাফে দুই নারীর অন্তর্বাসের ভেতরে বিশেষ কায়দায় লুকানো  ৫৯ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা মুল্যের ১৯ হাজার ৮৬৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে বিজিবি। এ সময় পাচারের দায়ে দুই নারীসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। সাথে তাদের বহনকারী অটোরিক্সা (সিএনজি) জব্দ ও চালককে আটক করা হয়েছে। আটক সিএনজি চালক মোঃ হাফিজ উল্লাহ (২৮) উখিয়া উপজেলার বালুখালী গ্রামের সৈয়দ হোসেনের পুত্র। ইয়াবাসহ আটক ২ নারী হলেন টেকনাফ পৌর এলাকা শীলবনিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত আবুল বশরের স্ত্রী রশিদা বেগম (৪৫) এবং সাফায়াত উল্লাহ’র স্ত্রী রোজিনা (২৫)।
টেকনাফ-২ বিজিবি’র পরিচালক অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ আছাদুদ-জামান চৌধুরী জানান ‘বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানা যায় শীলখালী মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে ইয়াবার একটি চালান টেকনাফ হতে কক্সবাজারে পাচার হতে পারে। উক্ত সংবাদ প্রাপ্তির পর ৬ মে দুপুর ১২টা হতে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ শীলখালী অস্থায়ী চেকপোষ্টে হাবিলদার মোঃ বাচ্চু মৃধার নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল শীলখালী মেরিন ড্রাইভ চেকপোষ্টে যানবাহন তল্লাশীর কাজে নিয়োজিত ছিল। এসময় টেকনাফ হতে কক্সবাজারগামী একটি সিএনজি দুইজন যাত্রীসহ উক্ত চেকপোষ্ট দিয়ে যাওয়ার সময় বিজিবি টহল দল সিএনজিটি সিগন্যাল দিয়ে থামায়। পরবর্তী সিএনজিতে আরোহিত যাত্রীদের তল্লাশী করে একজন যাত্রীর বক্ষ বন্ধনীর নীচে এবং অপর জনের অর্ন্তবাসের ভেতরে বিশেষ ব্যবস্থায় ফিটিং অবস্থায় ইয়াবা ভর্তি প্যাকেট পাওয়া যায়। অতঃপর উক্ত প্যাকেটগুলো খুলে গণনা করে ৫৯ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা মুল্যের ১৯ হাজার ৮৬৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। সিএনজি এর সিজার মূল্য ৫ লক্ষ টাকা। রেজিষ্ট্রেশন নম্বর-কক্সবাজার-ছ-১১-১৩৫৩। সর্বমোট সিজার মূল্য ৬৪ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা। উল্লেখ্য, ধৃত ২ জন মহিলা আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় সিএনজির চালকের যোগসাজসে উক্ত ইয়াবাগুলো বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে বহন করছিল। জব্দকৃত সিএনজিটি টেকনাফ শুল্ক গুদামে জমা করতঃ নিষিদ্ধ ঘোষিত মাদক ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে নিজ দখলে রাখার অপরাধে ধৃত আসামীদেরকে জব্দকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজা প্রদান করা হয়েছে’। ##

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top