ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে ওবায়দুল কাদের যা বললেন

31093413_1823165784413290_2042627896983420928_n-6.jpg

নিউজ  ডেস্ক।।

ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন: কারও অনুগ্রহে নয়, বরং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আগামীতে ক্ষমতায় আসতে চায় আওয়ামী লীগ।

এর পাশাপাশি তিনি আশা প্রকাশ করেন, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ভারত বরবারের মতো নিরপেক্ষ অবস্থান বজায় রাখবে।

ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাম মাধবের আমন্ত্রণে তিন দিনের সফর শেষে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন: ভারত অন্যতম বৃহৎ গণতন্ত্রের দেশ। তাদের একটা বিউটি রয়েছে। আমরা অনেক দেশকেই দেখেছি নির্বাচনের সময় তারা নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের চেষ্টা করে। কিন্তু ভারত কখনও এমন কিছু করেনি। আমাদের প্রত্যাশা, বন্ধু দেশ ভারত তাদের ঐতিহ্য ধরে রাখবে।

ক্ষমতায় কে থাকবে তা নির্ধারন করবে জনগন। কেউ ডিকটেট করুক তা চাই না। জানা মতে ভারত অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। ইলেকশন প্লান কি হবে তা আমরা ঠিক করব। পার্টি টু পার্টি সম্পর্ক শক্ত করতে এই সফর বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তিস্তা পানিবন্টন চুক্তি নিয়ে তিনি বলেন: আমরা ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, আপনারা দু’জন বছরের পর বছর ধরে ঝুলে থাকা সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন করেছেন। এর ফলে বাংলাদেশের মানুষের কাছে আপনার এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেড়েছে। আমরা আশা করবো তিস্তা চুক্তিও আপনাদের হাত ধরেই হবে।

উত্তরের জনপদে পানির জন্য হাহাকার এখন বাস্তবতা। বিষয়টি মোদিকে জানানো হয়েছে। মোদিকে বলেছি, এই কাজ করলে, দুই পিএম এর চলমান টার্মে হলে ট্রিমেন্ডাস গুড উইল সৃষ্টি হবে।

তিস্তার পানিবন্টন চুক্তি সম্পন্নের ব্যাপারে মোদি আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদলকে আশ্বস্ত করেছে বলে জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

এসময় তিনি সফরের বিস্তারিত সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন। পাশাপাশি, দু-একদিনের মধ্যে সংবাদ সম্মেলন করে সফরের তথ্যগত দিক দেশবাসীর কাছে আরও বিস্তারিত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি।

বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক সুদৃঢ় করলে, অসুবিধা কিছু নেই বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এ নেতা।

এসময় তারেক রহমানের নাগরিকত্ব ইস্যুতে প্রশ্ন করা হলে এড়িয়ে যান কাদের। বলেন: গত তিনদিন আমি দেশের বাইরে ছিলাম। তাই ভালো করে না জেনে এখনই কিছু বলতে পারবো না। আমাদের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়ে দলের অবস্থান পরিস্কার করেছেন।

অল্প সময়ের জন্য সফরে গেলেও দলের একজনকে দায়িত্ব দিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের রাজনীতির জন্য নজির বলে দাবি করেন কাদের।

মঙ্গলবার বিকেল ৪টা ২০মিনিটে জেট এয়ারওয়েজ যোগে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে ওবায়দুল কাদের নেতৃত্বাধীন ১৯ সদস্যের প্রতিনিধি দলকে বহনকারী বিমান।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top