ছাত্রলীগ আসছে নতুন মডেলে: কাদের

7d160bffb16c7473b7b37acbedef4f8b-58dd18e2989f6.jpg

দিসিএম
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, তাঁরা ছাত্রলীগকে নিয়ে নতুন করে ভাবছেন। সামনে ছাত্রলীগের সম্মেলন আছে। সেই সম্মেলনে ছাত্রলীগকে নেতৃত্ব গঠনের দিক দিয়ে এবং কাজের দিক থেকে নতুন মডেলে করার নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আছে।

আজ শুক্রবার দুপুরে এক সেমিনার শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন। ঢাকার রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের প্রচার উপকমিটির এক সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, ‘ছাত্রলীগকে নিয়ে আমরা নতুন করে ভাবছি। আমাদের ছাত্রলীগের সম্মেলন আছে, আপনারা জানেন। সেই সম্মেলনে আমরা নেতৃত্ব গঠনের দিক দিয়ে এবং ছাত্রলীগকে নতুন মডেলে কাজ করার একটা নির্দেশনা নেত্রীর আছে, আমরা সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছি। একটু ধৈর্য ধরুন।’

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিমের (রনি) বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না, জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমাদের অবস্থান অত্যন্ত পরিষ্কার। ছাত্রলীগ হোক, আওয়ামী লীগ হোক। অপকর্ম করে কেউ পার পেয়ে যেতে পারেনি। এখানে শেখ হাসিনা কঠোর অবস্থানে। কোন অপরাধের শাস্তি হয়নি বলুন? অপরাধ করে পার পেয়ে যায়, এই কালচার আওয়ামী লীগে নেই, বিএনপিতে থাকতে পারে।

এর আগে সেমিনারে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে উদ্দেশ করে মন্ত্রী কাদের বলেন, রাজনীতি যখন করেন, তখন বিদেশে বসে দেশের রাজনীতির অঙ্গনে শব্দবোমা ফাটাচ্ছেন কেন? আসুন, রাজপথ মোকাবিলা করুন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিষয়টি হচ্ছে তারেক রহমানের সাহস আছে কি না, রাজনীতি যখন করেন, তখন বিদেশে বসে দেশের রাজনীতির অঙ্গনে শব্দ বোমা ফাটাচ্ছেন কেন? আসুন, রাজপথ মোকাবিলা করুন। কত সাহস আছে। রাজনীতি যখন করেন, জেলে যাওয়ার সাহস নেই, সেই রাজনীতি কোনো দিন সফল হবে না। রাজনীতি করলে জেলজুলুম সহ্য করতে হবে।

সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নির্বাচনের আগে তারেক রহমানকে কে ফিরিয়ে আনবে? আমরা? আমরা ফিরিয়ে আনলে তো সেটা বিদেশে পালিয়ে থাকা দণ্ডিত আসামিকে আইনগতভাবে ফিরিয়ে আনতে আদালতের নির্দেশ আছে। সেক্ষেত্রে কোনো সমীকরণের বিষয় নেই।’

সহায়ক সরকার গঠন বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করার এই দয়িত্বটা ফখরুল সাহেব নিজেও নিতে পারেন। তাঁরা নিজেরাই তো ঠিক নেই। কখনো বলেন সহায়ক সরকার, কখনো বলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার। তিনি প্রশ্ন করেন, ‘আমরা কোনটা গ্রহণ করব?’

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পরিষ্কার বলে দিচ্ছি, আর পাঁচ-ছয় মাস পরে নির্বাচনের তফসিল। নির্বাচনের আগে এখন আর সংবিধানের বাইরে যাওয়া কোনো সুযোগ নেই। অন্যান্য দেশে যেভাবে হচ্ছে, সেভাবেই হবে। তার বাইরে যেতে চাইলে চিৎকার করতে পারেন, আন্দোলন করে আদায় করবেন। এ কথা তো শুনেছি নয় বছর আগে থেকে। নয় বছরে নয় মিনিটও দাঁড়াতে পারেননি।’

সেমিনার বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এখন এ ধরনের সেমিনারের পক্ষপাতী নই, কারণ আগামী নির্বাচন খুবই নিকটে। এখন আমাদের অ্যাকশন প্রোগ্রাম নিতে হবে। বসে বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আমরা সেমিনার করব—প্রচার সেল তা করেও আসছে। কিন্তু এই মুহূর্তে এটার আর প্রয়োজন নেই। এখন অনেক কাজ রয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিংয়ে আমাদের অবস্থানের দুর্বলতা চোখে পড়ে। এটা খুবই স্ট্রং নেটওয়ার্ক, এটাকে ইগনোর করার কোনো সুযোগ নেই। এটাকে প্রচার সেল গুরুত্ব দিবে বলে আমি মনে করি।

সেমিনারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাসউদ্দিন বলেন, রাজস্বব্যবস্থাকে সম্পূর্ণভাবে ঢেলে সাজাতে হবে। এটা কোনো কঠিন কাজ নয়। ট্যাক্স সিস্টেমকে সম্পূর্ণভাবে ঢেলে সাজাতে হবে, এটাও কোনো কঠিন কাজ নয়। সুদের হারের ব্যবস্থাকে সম্পূর্ণভাবে ঢেলে সাজাতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের সভাপতিত্বে সেমিনারে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

 

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top