‘‘ভালো থেকো দুনিয়ার মানুষেরা‘‘স্ট্যাটাস দিয়ে মডেলের আত্মহত্যা

27721305_588803884805705_1275190175_n-6.jpg

আগামী সেপ্টেম্বরে বিয়ে করে নতুন জীবন শুরুর কথা ছিল উঠতি মডেল ফাহিম শাহরিয়ার সৌরভের। কিন্তু সব পরিকল্পনা ভেস্তে দিয়ে নিজের জীবনের ইতি টেনেছেন তিনি।

গত ২৬ মার্চ রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের মোহাম্মাদিয়া হাউজিং লিমিটেডের ৩ নম্বর সড়কের একটি ভাড়া বাসায় আত্মহত্যা করেন ফাহিম। আত্মহত্যার আগে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসও দেন তিনি।

সেই স্ট্যাটাসে ফাহিম লিখেন, ‘আম্মু মারা যাওয়ার পর থেকে আমার দুনিয়াটা অনেক ছোট হয়ে গিয়েছিল। আমার ভবিষ্যৎ চাওয়া-পাওয়া বলতে যা ছিল, আজ তাও আমাকে ছেড়ে চলে গেল। স্বপ্ন দেখার মতো কিছু নেই। আমার জন্য এত দিন যিনি মিডিয়াতে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে পারেননি, আজ থেকে তার পথের কাঁটা সরে গেল। দোয়া রইল তার জন্য, উনি যেন সুপারস্টার হন, তার সুনাম ছড়িয়ে পড়ুক চারদিকে—এই কামনাই করি। যদি কখনো কাউকে কোনো প্রকার কষ্ট দিয়ে থাকি, তার জন্য সরি, ক্ষমা করে দিবেন সবাই। শেষ কথা হচ্ছে, আমার জন্য কেউ যেন কাউকে দোষারোপ না করে, আমি যা করেছি আমি আমার নিজের চিন্তাভাবনায় করেছি। আল্লাহ হাফেজ। ভালো থেকো দুনিয়ার মানুষরা।’

এদিকে এই আত্মহত্যার জন্য তাঁর প্রেমিকাকে দোষারোপ করছেন ফাহিমের পরিবার, সহপাঠী ও বন্ধুরা। তাঁদের দাবি, মডেল প্রেমিকার সঙ্গে ঝামেলার কারণেই নিজের জীবন দিয়েছেন ফাহিম।

তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ওই মডেলের মা। এনটিভি অনলাইনকে তিনি বলেন, ‘ফাহিমের মা মারা যাওয়ার পর থেকেই সে খুব ডিপ্রেশনে ছিল। কিন্তু সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেবে, এটা বুঝতে পারেনি। আমি আরো চাচ্ছিলাম, দ্রুতই ওদের বিয়ে দিয়ে দেবো।’

মেয়ের সঙ্গে ফাহিমের কোনো বিষয়ে ঝামেলা বা ঝগড়া হয়নি বলেও দাবি করেন এই মা।

মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর এনটিভি অনলাইনকে বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করেছেন ফাহিমের বাবা জাহাঙ্গীর আলম জাহান। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।

নিহত ফাহিম রাজধানীর ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে ব্যাচেলর অব রিয়েল এস্টেট বিষয়ে লেখাপাড়া শেষ করেছেন। মডেলিংয়ের পাশাপাশি তিনি কাজ করতেন আনন্দ পুলিশ হাউজিং সোসাইটিতে মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ পদে। তাঁর গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top