ভেজাল সার বিক্রিতে সাজার মেয়াদ বাড়ছে

29365917_2056746694608627_6775790589174577857_n-3.jpg

ভেজাল সার বিক্রির দায়ে সাজার মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রস্তাবে আগে যে সাজার পরিমাণ ছিল ছয় মাস, এখন তা বাড়িয়ে দুই বছর করার কথা বলা হয়েছে।

আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ প্রস্তাব করা হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের সম্মেলন কক্ষে সচিব মো. শফিউল আলম ব্রিফিং করেন। ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা জানান।

ব্রিফিংয়ে সচিব আজকের বৈঠকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের উপস্থাপিত সার (ব্যবস্থাপনা) (সংশোধন) আইন, ২০১৮-এর খসড়ার বিষয়ে কথা বলেন। তিনি জানান, খসড়াটি নীতিগতভাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সচিব বলেন, ২০০৬ সালের এই আইন সংশোধন করা হচ্ছে। সংশোধনীর উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভেজাল সার বিক্রি করলে আগে ছয় মাস কারাদণ্ড ও ৩০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করার বিধান ছিল। এখন সাজার মেয়াদ বাড়িয়ে দুই বছর কারাদণ্ড এবং পাঁচ লাখ টাকা জরিমানার অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করার বিধান করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ ছাড়া এ সার ব্যবস্থাপনা দেখার জন্য ১৫ সদস্যের কমিটির সদস্য সংখ্যা বাড়িয়ে ১৭ সদস্যের কমিটি করতে প্রস্তাব করা হয়েছে।

ভেজাল সারের কারণে কৃষি উৎপাদন ব্যাহত হয় উল্লেখ করে সচিব বলেন, এতে কৃষকরা প্রতারিত হন। যাতে ভেজাল সার বিক্রি রোধ হয়, এ জন্য আইন সংশোধন করে এই সাজার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

এ ছাড়া আজকের বৈঠকে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ ইনস্টিটিউট আইন ও বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইনের খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top