৩য় ধাপে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রোহিঙ্গাদের যাত্রা

Screenshot_20210128_224944.jpg

কক্সবাজার থেকে ৩য় দফায় ভাসানচরে স্থানান্তরের জন্য ১৬টি বাসে করে আট শতাধিক রোহিঙ্গা চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে এসব বাস যাত্রা শুরু করে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) ২ দিনে ৩ হাজার রোহিঙ্গাকে স্থানান্তরের কথা রয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কক্সবাজার অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ শামসুদ্দৌজা জানান, স্বেচ্ছায় যেতে আগ্রহী প্রায় ৩ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা করা হয়েছে। তাদেরকে আগে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ ও ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসা হচ্ছে। সেখান থেকে প্রাথমিক প্রক্রিয়া শেষে বাসে করে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তিনি জানান, ইতোমধ্যে উখিয়া ছেড়ে গেছে ১৬টি বাস। যেখানে আট শতাধিক রোহিঙ্গা রয়েছে। তিনি আরও জানান, প্রথমে শিবির থেকে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর জেটি ঘাটে পরে সেখান থেকে ট্রলারে করে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে স্বেচ্ছায় যেতে আগ্রহী ৩ হাজার রোহিঙ্গাকে তালিকাভুক্ত করা হলেও এ সংখ্যা তিন হাজারের কম বেশি হতে পারে বলেও তিনি জানান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্যাম্পের একজন মাঝি জানিয়েছেন, রোহিঙ্গারা ভাসানচরে যেতে দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠেছে। ইতোমধ্যে স্বেচ্ছায় ক্যাম্প ইনর্চাজের নিকট ভাসানচরে যেতে আগ্রহীদের তালিকা যারা জমা দিয়েছিল তারা আজ ও আগামীকাল ভাসানচরে যাচ্ছে। তৃতীয় দফায় ২ দিনে রোহিঙ্গাদের বিশাল বহর স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যাওয়ার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা তাদের নিরাপত্তা ও প্রয়োজনীয় সহায়তা দিচ্ছে।
এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম ধাপে ১ হাজার ৬৪২ জন এবং ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় ধাপে ১ হাজার ৮০৪ জনসহ মোট ৩ হাজার ৪৪৭ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়াও আরও আগে থেকে সেই দ্বীপে ছিল আরও ৩০৫ জন রোহিঙ্গা। যাদের সাগর থেকে উদ্ধার করে সেখানে আশ্রয় দেয়া হয়।

সূত্রমতে, আগামী ফেব্রুয়ারীর ২য় সপ্তাহে ভাসানচরে যেতে আগ্রহী রোহিঙ্গা শরনার্থীদের আরও একটি দল উখিয়া-টেকনাফ এর শরনার্থী ক্যাম্প থেকে ৪র্থ দফায় ভাসানচরে স্থানান্তরের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা এখন ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬ জন। এই হিসাব ২০২০ সালের ৫ আগস্ট পর্যন্ত। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে বাংলাদেশ ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এদের মধ্যে থেকে সরকার এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নিয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন