ভারতে ‘রহস্যময়’ রোগে আক্রান্ত ৩০০, একজনের মৃত্যু

thecmbd.com_-2.jpg

ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে নতুন এক ‘রহস্যময়’ রোগ ছড়াতে শুরু করেছে। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে কমপক্ষে একজন মারা গেছেন। সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকেরা বলছেন, আক্রান্ত ব্যক্তিদের অনেকের বমি বমি ভাব হচ্ছে এবং অনেকেই অচেতন হয়ে পড়ছেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, এ পর্যন্ত ২২৭ জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, রহস্যময় এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বেশি। ‘ইন্ডিয়া টুডে’র খবরে বলা হয়েছে, সাড়ে তিন শ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আর ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’–এর খবর, কমপক্ষে ৩০০ জন আক্রান্ত হয়েছেন এ রোগে।

অন্ধ্র প্রদেশের এলুরু শহরে এ রহস্যময় রোগ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। ভারতে এমন সময়ে এ রোগ ছড়াতে শুরু করল, যখন করোনাভাইরাসের মহামারিতে ধুঁকছে দেশটি। ‘ইন্ডিয়া টুডে’র খবর, গতকাল রোববার রাত পর্যন্ত এলুরুর হাসপাতাল থেকে মোট ১৮৬ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আর ১৬৪ জন চিকিৎসাধীন। এ পর্যন্ত একজন মারা গেছেন। ৪৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তিকে জিজিএইচ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল গত শনিবার সকালে। রোববার সন্ধ্যায় তিনি মারা যান।

করোনার সঙ্গেও লড়ছে অন্ধ্র প্রদেশ। ভারতে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্যের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে এটি। অন্ধ্র প্রদেশে করোনা রোগীর সংখ্যা ৮ লাখ। সেখানকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী আল্লা কালী কৃষ্ণা শ্রীনিবাস বলেন, রহস্যময় রোগে আক্রান্ত রোগীদের সবার করোনা শনাক্তের পরীক্ষা করানো হয়েছে। কিন্তু সবার পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে।

এলুরু সরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসক ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’কে বলেন, যাঁরা অসুস্থ হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে অনেকেই বিশেষ করে শিশুরা হঠাৎ বমি করতে শুরু করে।

অনেকেই বলছিল, তাদের চোখ জ্বলছে। এ ছাড়া অনেকেরই খিঁচুনি হচ্ছিল।

এ ঘটনার তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি) নেতা ও সাবেক মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু। তবে অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডি বলেন, ঘটনা তদন্তের জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের একটি দল সেখানে পাঠানো হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রী এলুরু সফর করবেন এবং রোগী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

এদিকে রহস্যময় রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের করোনা পরীক্ষা ছাড়া রক্ত পরীক্ষাও করা হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আল্লা কালী কৃষ্ণা শ্রীনিবাস বলেন, রক্ত পরীক্ষায় ভাইরাসের কোনো সংক্রমণ পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া পানি কিংবা বায়ু দূষণের কারণে এ রোগ হয়নি বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। শ্রীনিবাস বলেন, এটি একটি রহস্যময় রোগ এবং পরীক্ষাগারে বিস্তারিত বিশ্লেষণে এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে। যদিও টিডিপি ইঙ্গিত দিয়েছে, দূষণের কারণে এ রোগ ছড়িয়ে থাকতে পারে।

আপনার মন্তব্য লিখুন