ফোর্বসের তালিকায় স্কয়ার, রেনাটা ও ফরচুন

httpsthecmbd.com_-1.jpg

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক সাময়িকী ফোর্বসের এশিয়ার সেরা ২০০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় তিন বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান জায়গা পেয়েছে। বাংলাদেশের এই তিন প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, রেনাটা ফার্মাসিউটিক্যাল ও ফরচুন শুজ।

এ তালিকায় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ২০০ পাবলিক কোম্পানিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যাদের বার্ষিক পণ্য বিক্রির মূল্যমান ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটি মার্কিন ডলারের নিচে। তালিকায় থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর ‘ব্যতিক্রমী করপোরেট পারফরম্যান্সের রেকর্ড’ আছে বলে ফোর্বসের দাবি।

বাংলাদেশি তিন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রথমেই আছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস। ফোর্বস জানায়, স্কয়ারের বার্ষিক বিক্রির পরিমাণ ৫১ কোটি ২০ লাখ ডলার। তাদের নিট আয় ১৫ কোটি ডলার। কর্মীর সংখ্যা ৯ হাজার ২৩৪।

তালিকায় এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ২০০ পাবলিক কোম্পানিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যাদের বার্ষিক পণ্য বিক্রির মূল্যমান ১ বিলিয়ন বা ১০০ কোটি মার্কিন ডলারের নিচে। তালিকায় থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর ‘ব্যতিক্রমী করপোরেট পারফরম্যান্সের রেকর্ড’ আছে বলে ফোর্বসের দাবি।

এরপর আছে রেনাটা ফার্মাসিউটিক্যাল। ফোর্বসের তথ্যমতে, কোম্পানিটির বার্ষিক বিক্রির পরিমাণ ২৭ কোটি ১০ লাখ ডলার। নিট আয় সাড়ে চার কোটি ডলার এবং কর্মীসংখ্যা ৭ হাজার ৩২৪।

তালিকার তৃতীয় বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান ফরচুন শুজ। তুলনামূলকভাবে নতুন প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক বিক্রির পরিমাণ ১ কোটি ৮০ লাখ ডলার। তাদের নিট আয় ৩০ লাখ ডলার এবং কর্মীসংখ্যা ১ হাজার ৭২৩।

তালিকার তথ্যমতে, বাংলাদেশি কোম্পানি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের বাজারমূল্য ১৭১ দশমিক ৬ কোটি ডলার, রেনাটার ১০৭ দশমিক ১ কোটি ডলার আর ফরচুন শুজের ২ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

ফোর্বসের এশিয়ার সেরা ২০০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় তিন বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান জায়গা পেয়েছে। বাংলাদেশের এই তিন প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, রেনাটা ফার্মাসিউটিক্যাল ও ফরচুন শুজ

বিশ্বের অন্যান্য তালিকার মতো এখানেও চীনা কোম্পানিগুলোর প্রাধান্য দেখা যায়। ২৩টি চীনা কোম্পানি এই তালিকায় স্থান পেয়েছে। এ ছাড়া জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, তাইওয়ান ও ইন্দোনেশিয়ার বেশ কিছু কোম্পানি তালিকায় স্থান পেয়েছে। ভারতের মোট ২০টি কোম্পানি এখানে স্থান পেয়েছে।

তালিকায় স্থান পাওয়া কোম্পানিগুলোর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ১৩৫০ কোটি ডলার এবং সর্বনিম্ন ১ কোটি ডলারের কম। সর্বোচ্চ বাজারমূল্য নিউজিল্যান্ডের ফিশার অ্যান্ড পে ক্যাল হেলথ কেয়ারের—১৩৪৯ দশমিক ২ কোটি ডলার। উল্লেখযোগ্য

কোম্পানিগুলোর মধ্যে চীনের হ্যাংঝু ওয়ানচান্স টেকের ৩৭৪ কোটি ডলার এবং একই দেশের এসপ্রেসিফ সিস্টেমসের বাজারমূল্য ২৫৮ দশমিক ৬ কোটি ডলার। অন্যদিকে সিঙ্গাপুরের অ্যাগ্রিকালচার ফুডসের বাজারমূল্য মাত্র ৮ মিলিয়ন বা ৮০ লাখ ডলার।

আপনার মন্তব্য লিখুন