ডুলাহাজারায় জমি দখলে বাধা, ভূমিদস্যুদের হামলায় নারীসহ আহত ৩

thecm-9.jpg

বার্তা পরিবেশক:
চকরিয়ার ডুলাহাজার বসতবাড়ি দখলের অপচেষ্টা করে হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় নারীসহ তিনজন আহত হয়েছে। গত ৬ জানুয়ারি (বুধবার ) ডুলাহাজারা ইউনিয়নের পূর্ব মাইজপাড়ার এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

আহতরা হয়েছেন, ওই এলাকার হামিদুল হকের স্ত্রী লতিফা খামন (৫৮), তাদের পুত্র তৌহিদুল হক (২৬) ও ভাড়াটিয়া মোঃ আনিসের স্ত্রী রিনা আকতার (১৮)। এদের মধ্যে মৃত্যুপথযাত্রী তৌহিদুল হককে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হামিদুল হক জানান, বিএস ৭৫০ নং খতিয়ানভুক্ত ৫৯৫৫ নং দাগের ৩৭ শতক ৩০০ বছরের পৈত্রিক জমিতে বাড়ি নির্মাণ করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে। সম্প্রতি একটি জবরখালী চক্র তাদের উচ্ছেদ করে জায়গাটি দখল করার অপচেষ্টা করছে। জবর দখলকারীদের কবল থেকে জমি রক্ষা করতে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে একটি মামলা দায়ের করেন হামিদুল হক। এর প্রেক্ষিতে গত ৪ জানুয়ারি ওই জমিতে হামিদুল হকের পক্ষে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।

হামিদুল হক অভিযোগ করে জানান, মামলা দায়ের ও ১৪৪ ধারা জারির খবর পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে জবরদখল অপচেষ্টাকারীরা। এক পর্যায়ে ৬ জানুয়ারি বালুরচর ৬নং ওয়ার্ড এর মৃত নজির হোসেনের ভূমিদস্যু পুত্র জাকের হোছাইনের নেতৃত্বে পাগলিরবিল এলাকার মৃত ছৈয়দ আহমদের পুত্র নূরুল আবছার, নয়াপাড়া এলাকার মৃত মোজাম্মেল মেম্বারের পুত্র আলী আহমদ, মাইজপাড়া এলাকার গিয়াস উদ্দীনের পুত্র রুহুল আমিন ও পূর্বমাইজপাড়ার জামাল আহমদের পুত্র কমর উদ্দীনসহ একদল হামলাকারী হামিদুল হকের পরিবারের লোকজনের উপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা ধারালো দা দিয়ে উপর্যপুরি হামলা চালায় তাদের। এতে হামিদুল হকের স্ত্রী লতিফা খামন (৫৮), তাদের পুত্র তৌহিদুল হক (২৬) ও ভাড়াটিয়া মোঃ আনিসের স্ত্রী রিনা আকতার গুরুতর জখম হয়। খবর পেয়ে হামলার পর উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে একদল ঘটনাস্থল গিয়ে আহতদের উদ্ধার করেন পুলিশ। উদ্ধার করে তাদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থা আশঙ্কা হওয়ায় তাদের তিনজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করা হয়। সেখানে তৌহিদুল হক আশঙ্কাজনক অবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

জানা গেছে, হামিদুল হক কক্সবাজারের আলোচিত বীর মুক্তিযোদ্ধার জয়বাংলা ৭১ এর কমান্ডার কামাল হোসেনের চৌধুরীর ভাগিনা। হামিদুল হকের পুত্ররা ঢাকা ও চট্টগ্রাম শহরে অবস্থান করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরিত রয়েছে।

হামিদুল হক বলেন, প্রকাশ্যে হামলার ঘটনা ঘটে এবং পুলিশ ঘটনা প্রত্যক্ষ করলেও থানায় মামলা নেয়নি পুলিশ। উপরের চাপের কথা বলে পুলিশ মামলা না নিয়ে আমাদের ফিরিয়ে দেয়। তাই বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করছি। আমাদের ভদ্রতার সুযোগ নিয়ে ভূমিদস্যুরা আমাদের জায়গা দখলের চেষ্টা করছে। আমি এর বিচার চাই।

আপনার মন্তব্য লিখুন