টিএসসির বিষয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মত চেয়েছে ঢাবি

prothomalo-bangla_2020-12_e462db33-f6c6-4d5f-96d4-78db468abae6_chuadanga_singera-1.jpg

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) ‘সার্বিক উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের উদ্যোগ’ নিয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মতামত জানতে চেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মতামত ছাড়াই টিএসসির বর্তমান কাঠামোটি ভেঙে নতুন করে গড়া হচ্ছে—এমন সমালোচনার মধ্যে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মতামত জানতে চাওয়া হলো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানের নির্দেশনা অনুযায়ী গতকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম সিকদার অনুষদগুলোর ডিন ও ইনস্টিটিউটগুলোর পরিচালকদের কাছে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে মতামত জানতে চাওয়া হয়েছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছে বিজ্ঞপ্তিটি পৌঁছানোর জন্য ডিন ও পরিচালকদের অনুরোধ করেছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি সেলের পরিচালক, উপাচার্য, দুই সহ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষের দপ্তরেও এই বিজ্ঞপ্তির অনুলিপি পাঠানো হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র–শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি)

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র–শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি)

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদয় নির্দেশনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সার্বিক উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। টিএসসির সার্বিক উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা ও সুপারিশ আহ্বান করা যাচ্ছে। আগামী ২ জানুয়ারির মধ্যে (https://forms.gle/GnfMKXKS1NBVZGND7) ওয়েব লিংকে মতামত ও সুপারিশ পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।
ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী আবুল কালাম সিকদার প্রথম আলোকে বলেন, ‘উপাচার্যের নির্দেশনা অনুযায়ী বিজ্ঞপ্তিটি পাঠানো হয়েছে।’

এদিকে শিক্ষকদের কেউ কেউ ও বামপন্থী ছাত্রসংগঠন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট টিএসসির দৃষ্টিনন্দন ভবনটি ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করলেও টিএসসিকে নতুন করে গড়ার লক্ষ্যে এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে সরকারের গণপূর্ত অধিদপ্তর।

নকশা প্রস্তুত প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গণপূর্ত অধিদপ্তর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছ থেকে চাহিদাপত্র নিয়েছে। টিএসসির ভারপ্রাপ্ত পরিচালক সৈয়দ আলী আকবর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দপ্তরকে টিএসসির নতুন অবয়বে কী কী সুযোগ-সুবিধা থাকতে পারে, তার একটি তালিকা দিয়েছেন। সম্প্রতি তালিকাটি গণপূর্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে জমা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দপ্তর৷

আপনার মন্তব্য লিখুন