আমার বাঙলাভাষার আঞ্চলিক শব্দ বৈচিত্র্য : কক্সবাজার গ্রন্থটি বেরিয়েছে

FB_IMG_1580393235796.jpg

ফেসবুক কর্ণার  

আল্লাহ তা’আলার অশেষ রহমতে আমার বাঙলাভাষার আঞ্চলিক শব্দ বৈচিত্র্য : কক্সবাজার গ্রন্থটি বেরিয়েছে। আজ দুপুরে বাংলা একাডেমির প্রাক্তন মহাপরিচালক প্রফেসর মনসুর মুসাকে বইটি প্রদান করলাম। সাভারের গণবিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর মুসাকে তাঁর অফিস কক্ষে গ্রন্থটি হস্তান্তর করলাম। তিনি আমার গ্রন্থে একটি মূল্যবান ভূমিকা লিখেছেন। তিনি লিখেছেন এভাবে, ‘মুহম্মদ নূরুল ইসলাম তাঁর ‘বাঙলাভাষার আঞ্চলিক শব্দ বৈচিত্র্য : কক্সবাজার’ গ্রন্থে যে কাজটি করেছেন, তা তাঁর অভিজ্ঞতার চৌহদ্দির মধ্যে সীমাবদ্ধ, তিনি পূর্বসূরীদের উপাত্ত গ্রহণ করেছেন, নিজের সুদীর্ঘ জীবন পরিক্রমায় যে সকল শব্দের সংস্পর্শে এসেছেন সেগুলো নিবন্ধন করেছেন, শব্দগুলো সম্ভাব্য কোন্ ভাষা থেকে উদ্ভূত হয়েছে তা নির্ধারণের চেষ্টা করেছেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে তিনি শব্দগুলোর প্রয়োগ-দৃষ্টান্ত প্রদর্শন করেছেন। তাঁর ‘বাঙলাভাষার আঞ্চলিক শব্দ বৈচিত্র্য : কক্সবাজার’ গ্রন্থে তিনি পরিবর্তনের কথা বলেছেন, কোন ভাষার মূলশব্দ পরিবর্তিত হয়ে কক্সবাজারে এসে কোন রূপ পরিগ্রহ করেছে তা দেখিয়েছেন। যেহেতু উল্লেখিত ভাষাগুলোর মধ্যে আরবি, ফার্সি, বার্মিজ, রাখাইন, হিন্দি, ঊর্দু তাঁর কিঞ্চিৎ অধিগত, সেগুলোতে তাঁর বিবেচনা অনেকটা যুক্তিসঙ্গত বলে ধরা যায়, কিন্তু তুর্কি ইত্যাকার শব্দের ব্যুৎপত্তি কিংবা পরিবর্তন তেমন নয়।
উপভাষার শব্দ বিশ্লেষণের কাজে বর্ণনামূলক ধ্বনিতত্ত¡ ও ঐতিহাসিক রূপতত্তে¡র অন্তর্দৃষ্টি প্রয়োজন। ভাষা বৈচিত্র্য সূচিত হয় ধ্বনিতত্তে¡ ও ধ্বনি-অতিরেক ধ্বনিগুণে অর্থাৎ প্রস্বর, স্বরভঙ্গী ও জোর ইত্যাকার বিষয়ে। সেগুলো পরিচিহ্নিত করার জন্য যে ধরণের তাত্তি¡ক হাতিয়ার প্রয়োজন, তা নূরুল ইসলাম সাহেবের কাছে সহজলভ্য ছিল না, সেজন্য সে সব পরিবর্তন সূত্রাবলী তিনি দেওয়ার চেষ্টা করেন নি। যা তাঁর গবেষণায় ধরা পড়েনি, তার জন্য হতাশার অভিব্যক্তির কোনো প্রয়োজন নেই। যা তিনি করতে পেরেছেন, তার জন্য তাঁর প্রাপ্য ভাষাবিজ্ঞানী ও ভাষাপ্রেমীদের কৃতজ্ঞতা। তিনি ভাষার জগতের অস্পষ্ট অরণ্যে পথ হারান নি।
মুহম্মদ নূরুল ইসলাম আরও পথ হাঁটবেন, আরো ভাষা-উপাত্ত, প্রয়োগ-বিধি, বাকধারা; নিবন্ধন করবেন, এই প্রত্যাশা করি। তাঁর অঞ্চলে অনেক ‘ডঅঁর মানুষ’ আছেন তাঁরা যদি তাঁর সাহায্যে এগিয়ে আসেন তবে তিনি আরো ব্যাপক কাজ করতে পারবেন।
আমি তাঁর বাঙলাভাষার আঞ্চলিক শব্দ বৈচিত্র্য : কক্সবাজার গ্রন্থের বহুল প্রচার কামনা করছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন
Top