সওজের অভিযানে উদ্ধার দুইশ কোটি টাকার জায়গা

Screenshot_7-2.jpg

চন্দনাইশ সংবাদদাতা

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কস্থ চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী পৌরসভা সদর এলাকায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এ সময় পাকা, আধাপাকা ২শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদের পাশাপাশি ৪ একর জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। আজ রবিবার (১৮ অক্টোবর) সকালে এ উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। সকাল থেকে টানা ৬ ঘন্টার অধিক সময় ব্যাপী উচ্ছেদ অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকল্প ম্যানেজার মো. জাহেদ হোসাইন। উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ডেপুটি প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রকৌশলী তাহসিনা বিনতে ইসলামসহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিভিন্ন পদের কর্মকর্তা ও থানা পুলিশ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় সড়কের দুইপাশ থেকে প্রায় ২শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য ২শ কোটি টাকা। এদিকে দোকান উচ্ছেদের প্রতিবাদে  আগামীকাল ব্যবসায়ীরা  (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টায় মানববন্ধনের কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন।
জানা যায়, ক্রস বর্ডার রোড নেটওয়ার্ক ইমপ্রভমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় সড়ক প্রশস্ত করার উদ্দেশ্যে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে লক্ষে ২ মাস পূর্বে এ সকল ব্যবসায়ীদের ২ সপ্তাহ সময় দিয়ে নোটিশ প্রদান করা হয়। কিন্তু ব্যবসায়ীরা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ক্ষতিপুরণ পেয়েও তাদের স্থাপনা না সরানো প্রেক্ষিতে গতকাল ১৮ অক্টোবর এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ।
ব্যবসায়ীরা জানান, কোন ধরনের নোটিশ না দিয়ে হঠাৎ করে উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করায় তারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সেই সাথে সরকারি ক্ষতিপূরণ দেয়া বেশকিছু স্থাপনা উচ্ছেদ না করারও অভিযোগ তুলেছেন তারা।
এসময় হাজারী শপিং সেন্টারের প্রায় ১০টি দোকানের সার্টার ভেঙ্গে দিয়ে ব্যবসা পরিচালনা বন্ধ করে দেয়া হয়। একইভাবে ২শতাধিক দোকান বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সকাল থেকে প্রায় ৬ ঘন্টার অধিক সময় উচ্ছেদ অভিযান চলাকালে কিছু ব্যবসায়ী এ অভিযানে বাঁধা প্রদান করে। পক্ষদ্বয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটলে পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। চন্দনাইশ থানা অফিসার ইনচার্জ নাসির উদ্দিন সরকার বলেছেন, তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এ ব্যাপারে থানায় কোন ধরণের অভিযোগ হয়নি বলে তিনি জানান।

আপনার মন্তব্য লিখুন