ঈদগাহতে নৌকা প্রতীকের বিশাল সমাবেশে এমপি সাইমুম সরওয়ার কমল

নির্বাচিত হলে কক্সবাজার সিটি কর্পোরেশন, ঈদগাহ উপজেলা ও রামু পৌরসভা হবে

MP-Komol-Pic.jpg

সোয়েব সাঈদ ॥
ঈদগাহ হাই স্কুল মাঠে সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলের নির্বাচনী সমাপনী জনসভায় পরিনত হয়েছিলো জনসমুদ্রে। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে কক্সবাজারকে সিটি কর্পোরেশন, ঈদগাহকে উপজেলায় এবং রামুকে পৌরসভা করা হবে। তিনি বলেন, কক্সবাজার-রামু আসনের জন্য প্রধানমন্ত্রী যে বরাদ্ধ দিয়েছেন তা বাংলাদেশের অন্য কোন এলাকায় দেননি। বিগত ৫ বছরে আওয়ামীলীগ সরকারের অনেক মেঘা প্রকল্প শুরু হওয়ায় এ অঞ্চলের চেহারা পাল্টে যাচ্ছে। কক্সবাজার-রামুকে আইটি জোন হিসেবে গড়ে তোলা হবে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পারলে এখানকার মানুষ আর দরিদ্র এবং কর্মহীন থাকবে না। তিনি ৩০ ডিসেম্বর নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে কক্সবাজার-রামুবাসীর সেবা করার সুযোগ দেয়ার জন্য সর্বস্তুরের জনতার কাছে আহবান জানান।

বৃহষ্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকেলে ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত বিশাল সমাবেশে কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খাঁন বাহাদুর মোস্তাক আহমদ চৌধুরী বলেছেন, কক্সবাজার সদর এবং রামু উপজেলাবাসী স্বতঃস্ফূর্তভাবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সাইমুম সরওয়ার কমলকে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। এ ঐক্য নিশ্চিত বিজয় এনে দেবে। কমলের সুযোগ্য নেতৃত্বে ঈদগাহতে বিগত ৫ বছওে রেকর্ড পরিমান উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন হয়েছে। উন্নয়নের ধারবাহিকতা ধরে রাখতে নৌকাকে আবারো জয়ী করতেই হবে।

সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ লীগ সভাপতি আবু তালেব এর সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক মাহমুদুল করিম মাদুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে: কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদ, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগ সভানেত্রী কানিজ ফাতেমা মোস্তাক, রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম, জেলা যুবলীগের সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির চৌধুরী হুমু, ঈদগাঁও আওয়ামীলীগের সভাপতি সোহেল জাহান চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল হাসান রাশেদ, জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী বদিউল আলম, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা প্রশান্ত ভূষন বড়ুয়া, জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম, জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মোশেদ হোসাইন তানিম, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এড.একরামুল হুদা প্রমূখ।

এছাড়া সমাবেশে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মাষ্টার নুরুল আজিম, সহ সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, হুমায়ুন তাহের চৌধুরী হিমু, সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফুর রহমান আজাদ, মুজিবুল হক চৌধুরী, জেলা শ্রমিকলীগ সাধারন সম্পাদক শফিউল্লাহ আনছারী, জালালাবাদ ইউনিয়ন আলীগ সভাপতি সেলিম মোর্শেদ ফরাজী, সাধারন সম্পাদক মমতাজুল ইসলাম, পোকখালী সভাপতি মোজাহের আহমদ, সাধারন সম্পাদক চেয়ারম্যান রফিক আহমদ, ইসলামাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি চেয়ারম্যান নুর ছিদ্দিক, সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, ইসলামপুর সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মনজুর আলম, সাধারন সম্পাদক শাহজাহান চৌধুরী, রামু উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও সাংসদ কমলের ব্যক্তিগত সহকারি আবু বক্কর ছিদ্দিক, ছৌফলদন্ডী সভাপতি এহছানুল হক, সাধারন সম্পাদক শাহজাহান মনির, ঈদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছৈয়দ আলম, সদর উপজেলা যুবলীগ সাধারন সম্পাদক রাজিবুল হক চৌধুরী রিকো, সহ সভাপতি ওসমান সরওয়ার ডিপো, মিজানুল হক, উপজেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি আমজাদ হোসেন ছোটন রাজা, যুবনেতা হাসান তারেক,আমজাদ হোসেন, কমিউনিটি পুলিশ নেতা কাইয়ুম উদ্দিন ডিসেন্ট, ঈদগাঁও শ্রমিকলীগ সভাপতি নেয়ামত উল্লাহ, সাধারন সম্পাদক নুর মোহাম্মদসহ জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং হাজার হাজার জনতা সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।
দুপুরের পর থেকে সদর উপজেলা ও বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে নেতামকর্মীদের শ্লোগানে মুখরিত মিছিল এসে পুরো মাঠ কানায় কানায় ভরে যায়। বিকালে সমাবেশে চলাকালে পুরো মাঠ রূপ নেয় জনসমুদ্রে।

সোয়েব সাঈদ
রামু প্রতিনিধি
২৭ ডিসেম্বর ২০১৮

আপনার মন্তব্য লিখুন