‘ধানের শীষে’র ভোট বিপ্লবে এগিয়ে চলেছেন হাসিনা আহমদ

mqdefault-2.jpg
প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
ছবিতে মাঝবয়সী যে মহিলাটিকে এডভোকেট হাসিনা আহমদকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তে দেখছেন তা কেবল একটি কান্নাই নয়। এমনও শত শত আবেগের কান্নায় নিজেকে আপ্লুত করে একটি ভোট বিপ্লবের দিকে এগিয়ে চলেছেন তিনি। যখনই রাস্তায় নামছেন তখনই ছুটে আসছেন এমনতর অনেক মহিলা। তারা কিন্তু অভিযোগ অনুযোগ নিয়ে আসছেন না, তাদের কান্নার পানিতে রয়েছে সেই সুদূর শিলংয়ে থাকা প্রিয়নেতা সালাহউদ্দিন আহমদের জন্য বুকফাঁটা ভালোবাসা। সেই ভালোবাসারই বহিঃপ্রকাশ সালাহউদ্দিন আহমদেরই প্রিয়তমা স্ত্রী হাসিনা আহমদকে কাছে সেই আবেগ ধরে রাখতে পারছেন না চকরিয়া-পেকুয়ার অগণিত নারী-পুরুষ।
ছবির দৃশ্যটি তেমনই একটি আবেগঘন মুহুর্তের। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণায় নেমে প্রতিমুহুর্তেই বিএনপি দলীয় প্রার্থী এডভোকেট হাসিনা আহমদ এই ধরণের মুহুর্তের স্বাক্ষী হচ্ছেন। তারা শুধু হাসিনা আহমদকে দেখে কাঁদছেই না, তারা শপথ নিচ্ছেন ৩০ ডিসেম্বরের। প্রিয়নেতা সালাহউদ্দিন আহমদকে দেশে ফিরিয়ে আনা আর দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে ওই দিনে একটি ভোট বিপ্লব করার প্রত্যয় ব্যক্ত করছেন।
বরইতলী ইউনিয়নের পঁহরচাদা গ্রামের এই মহিলাটিও কাঁদছেন তার প্রিয়নেতা সালাহউদ্দিনের জন্য।
‘ধানের শীষে’র প্রার্থী হাসিনা আহমদ নির্বাচনী প্রচারণার পঞ্চম দিনে শুক্রবার (১৪ ডিসেম্বর) চকরিয়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গণসংযোগ ও পথসভায় বক্তব্য দেন।
তিনি বলেন, চকরিয়া-পেকুয়ার থমকে যাওয়া উন্নয়ন কর্মকান্ড সচল করতে হলে উন্নয়নের কারিগর সালাহউদ্দিন আহমদকে মুক্ত করতে হবে। আগামি ৩০ ডিসেম্বর ধানের শীষে ভোট দিয়ে বিজয় নিশ্চিত করতে পারলে চকরিয়া-পেকুয়ার সেই হারানো উন্নয়ন কারিগরকে ফিরে পাবেন মানুষ।
তিনি বরইতলী ইউনিয়নের পহরচাদা কুতুব বাজারের পথসভায় এমন কথা বলেন।
নির্বাচনী প্রচারণার নিয়মিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে হাসিনা আহমদ পহরচাদা ফাজিল মাদরাসা গেইটে পৌঁছলে কয়েক হাজার সাধারণ নারী-পুরুষ ধানের শীষ হাতে নিয়ে এডভোকেট হাসিনা আহমদকে বরণ করে নেন। ওই সময় মিছিলে মিছিলে মুখরিত পহরচাদা কুতুব বাজার লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।
একইদিন তিনি মৌলভীর দোকান ও বানিয়ারছরা ষ্টেশনেও পথসভায় বক্তব্য রাখেন।
এসব গণসংযোগ ও পথসভায় বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এডভোকেট হাসিনা আহমদ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন বরইতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও পহরচাদা সাংগঠনিক ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি জালাল সিকদার। তাছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম আরা স্বপ্না, চকরিয়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনসারুল ইসলাম বাবুল মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মোবারক আলী, পহরচাদা সাংগঠনিক ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা. মীর কাশেম, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবেল সিকদার সাবেক এম.ইউপি, গিয়াসুদ্দিন আজম, যুবদলের সভাপতি জিয়াবুল করিম, সাধারন সম্পাদক নুরুল আলম, ছাত্রদলের সভাপতি মো.আবদুল করিম প্রমুখ।
এদিকে শুক্রবার বিকেলে হারবাং ইউনিয়নের উত্তর হারবাং এলাকায় দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে গণসংযোগ করতে গেলে শত শত সাধারণ মানুষ ধানের শীষ হাতে নিয়ে হাসিনা আহমদের সাথে যোগ দিলে গণসংযোগ কার্যক্রমটিই জনস্রোতে পরিণত হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ছাবের আহমদ চাবুল হক, সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান, রুবেল সিকদার এম.ইউপি, সেলিম উদ্দিন, কাজী শোয়েব, আবুল কালাম এম.ইউপি, আনোয়ার আজিম, শ্রমিক নেতা রফিকুল ইসলাম, যুবদলের সভাপতি ওসমান, সাধারণ সম্পাদক এনাম, শ্রমিকদলের জয়নাল, মনোয়ার আলম, মনু ড্রাইভার, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি ওসমান সওদাগর, দেলোয়ার, ছাত্রদলের আবদুল্লাহ আল ফাহিম, মানিক, আরিফ প্রমুখ।
আপনার মন্তব্য লিখুন