টেকনাফের ইয়াবা রানী ইয়াসমিনসহ দুইজন আটক,সাথে বস্তাভর্তি ৭২ হাজার ইয়াবা

IMG-20180920-WA0000.jpg

দিসিএম

দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছিল টেকনাফের ইয়াবা রানী ইয়াসমিন আক্তার। গোয়েন্দা তথ্যে টপ লিস্টে থাকলেও তাকে ধরা এক প্রকার মুশকিল হয়ে পড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে।

পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় ইয়াবা রানীর বাড়ি থেকে বস্তাভর্তি ৭২ হাজার ২৯০ পিচ ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব।

এসময় ইয়াবা রানী ইয়াসমিন আক্তার (৩৩) ও তার সহযোগী মো. হাশেম (৩৫) নামের এক রোহিঙ্গা নাগরিককে আটক করা হয়। আটককৃত ইয়াবা রানীর বাড়ি টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যংপাড়া এলাকায়। তার স্বামীর নাম নুর মোহাম্মদ।

র‌্যাব সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ইয়াসমিনের বাড়িতে পাচারের জন্য ইয়াবা মজুদের খবর পেয়ে অভিযান চালায় র‌্যাব।

এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবার বস্তা নিয়ে পালানোর সময় ইয়াসমিন আক্তার ও রোহিঙ্গা নাগরিক মো. হাশেমকে হাতেনাতে আটক করে। হাশেম জাদিমুড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্লুক-ডি/৪ এর বাসিন্দা হামিদ হোসেনের ছেলে। পরে বস্তা থেকে ৭২ হাজার ২৯০ পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের ইনচার্জ মেজর মেহেদি হাসান অভিযানের বিষয়টি বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার মুঠোফোনে নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ইয়াসমিন আক্তার দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছে। তিনি পাচার কাজে ব্যবহার করেন রোহিঙ্গা নাগরিকদের। আটকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে টেকনাফ থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন