চাঁদা না পেয়ে হিমছড়িতে গুড়িয়ে দিলো প্যারাসেলিংয়ের স্থাপনা

Presentation1.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক
চাঁদা দাবি করে না পেয়ে কক্সবাজারের পর্যটনের ব্যতিক্রমী আয়োজন প্যারাসেলিং কোম্পানি ‘ফানফেস্ট’র স্থাপনা কেটে গুড়িয়ে দিয়েছে ক্ষুব্ধ বন্ধ কর্মকর্তা ও তার লোকজন। গতকাল শনিবার (৩ নভেম্বর) ভোর ৬টায় হিমছড়ি বিট কর্মকর্তা তারেকুর রহমান নেতৃত্বে ২০/২৫জন লোকজন এই ঘটনা ঘটায়। এসময় বিপুল মালামালও লুট করে নিয়ে গেছে হামলাকারীরা। এই ঘটনায় পর্যটন সংশ্লিষ্টরা চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন।
প্যারাসেলিং কোম্পানি ফানফেস্ট’র ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন নয়ন অভিযোগ করেন, হিমছড়িতে অবস্থিত প্যারাসেলিং কোম্পানি ‘ফানফেস্ট’র পরিচালিত প্যারাসেলিং থেকে চাঁদা দাবি করে আসছিল হিমছড়ি বিট কর্মকর্তা তারেকুর রহমান। টাকা না দেয়ায় ফানফেস্ট’র ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন নয়নকে বেশ কয়েকবার তলব করেন তিনি। গত শুক্রবার রাত ১০টায়ও আনোয়ার হোসেনকে কল করে তলব করেন বিট কর্মকর্তা তারেক। কিন্তু চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে আসছিলেন আনোয়ার হোসেন নয়ন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে শনিবার ভোরে কলাতলীর সোলতান, খালেক, মমতাজ, মালেক ও কামালসহ প্রায় ২০/২৫ জন লোকজন নিয়ে প্যারাসেলিং কোম্পানি ফানফেস্ট’র পাঁচটি পর্যটক ছাউনি, কিটকটসহ অন্যান্য স্থাপনা কেটে গুড়িয়ে দেয় বিট কর্মকর্তা তারেকুর রহমান ও তার লোকজন। এমনকি পর্যটকদের ব্যবহৃত টয়লেট পর্যন্ত গুড়িয়ে দিয়েছে। এসময় প্যারাসেলিং কোম্পানি ‘ফানফেস্ট’র ওয়াকিটকি, রশি, ছাতা, ইঞ্জিন, মেশিনারিজ যন্ত্রপাতি, প্যারাসুট, উদ্ধার কার্যক্রমের বিপুল মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে হামলাকারীরা। অন্তত দুই লাখ টাকার মালামাল লুট করা হয়েছে বলে জানান আনোয়ার হোসেন নয়ন।
তিনি আরো জানান, হামলার সময় প্যারাসেলিং কোম্পানি ফানফেস্ট’র নাইটগার্ডসহ চারজন প্রহরী হামলাকারীদের অনেক অনুনয়-বিনয় করেন। কিন্তু তারা কারো কথা শুনেনি। উল্টো প্রহরীদের হুমকি দেন।
জানা গেছে, এই হামলার ঘটনায় অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন হিমছড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইকরামুল হক। এই ঘটনায় আইনী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।
এদিকে পর্যটন সংশ্লিষ্টরা জানান, প্যারাসেলিং কক্সবাজারের পর্যটনের একটি ব্যতিক্রমী অংশ। এই প্যারাসেলিং কক্সবাজারকে পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ জাগিয়েছে। জেলা প্রশাসন এই প্যারাসেলিংকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে অনুমোদন দিলেও সেখানে বনবিভাগের বিটকর্মকর্তা কর্তৃক চাঁদা দাবি পর্যটনের জন্য বিরাট হুমকি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেখানে পর্যটনকে বিকশিত করতে নানা উদ্যোগ নিচ্ছেন সেখানে বনকর্মকর্তার চাঁদা দাবি করছেন- তা পর্যটনের অশনি সংকতে। অভিযুক্ত ওই বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রতি দাবি জানিয়েছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।
অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চেয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে কল ধরেননি হিমছড়ি বিট কর্মকর্তা তারেকুর রহমান।

আপনার মন্তব্য লিখুন