গরুর মৃতদেহের দুর্গন্ধে পরিবেশ বিপর্যস্ত

5068_me.jpg

আবদুল মতিন ডালিম :

টেকনাফের সমুদ্র সৈকতে যত্র-তত্র পড়ে রয়েছে গরুর মৃতদেহ। এসব মরা গরুর দুর্গন্ধে সৈকতে আগত পর্যটক ও স্থানীয়রা নাক চেপে ধর্ েহাঁটছেন, কোথাও দাঁড়ানো যাচ্ছে না। সমুদ্র সৈকতের বেহাল দশা ও দূষিত পরিবেশ নিয়ে দর্শনার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
গতকাল বিকালে টেকনাফ সমুদ্র সৈকতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- গরুর গলিত মৃতদেহ পড়ে আছে টেকনাফ-কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভের জিও ব্যাগ ও ব্লকের মাঝখানে। টেকনাফ সদর ইউনিয়নের তুলাতলি ও লম্বরী ঘাট এলাকায় পড়ে আছে আরও দুটি গরুর গলিত মৃতদেহ। এখানেই শেষ নয়, সমুদ্র সৈকতের বিভিন্ন স্থানে যত্র-তত্রভাবে পড়ে রয়েছে নারকেলের ছোবড়া, ডাবের খোসা, বিস্কুট-চানাচুরের প্যাকেটসহ নানা আবর্জনা।
স্থানীয় এক গরু ব্যবসায়ী জানান- ঈদুল আযহার দুদিন আগে মিয়ানমার থেকে আনার সময় ট্রলারে প্রায় ৩৩টি গরু মারা যায়। ওইসব মরে যাওয়া গরুগুলো ট্রলারের শ্রমিকেরা সাগরে ফেলে দেয়। ফেলে দেওয়া মরা গরুগুলো জোয়ারের পানিতে কূলে ভেসে আসতেছে।
স্থানীয়দের অভিযোগÑ কোরবানির ঈদের আগে বেপারিরা মিয়ানমার থেকে নৌপথে পশু আনার সময় ট্রলারে মরে যাওয়া পশু সাগরে ফেলে দেওয়ায় ওই মরা পশুগুলো কূলে ভেসে আসার কারণে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে।
কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা দীপু বলেন- এভাবে মৃত প্রাণীর দেহ পড়ে থাকা জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। এসব মৃতদেহ থেকে রোগ-জীবাণু ছড়াতে পারে। পর্যটকদের স্বার্থে এগুলোকে মাটিতে পুঁতে ফেলা জরুরী।
সৈকতপাড়ে বসবাসরত লোকজন জানানÑ আশপাশে দোকানপাটের আবর্জনা সমুদ্র সৈকতে ফেলা হয়। এ কারণে আবর্জনা মাড়িয়েই সৈকতে ঘুরে বেড়াতে হয় পর্যটকদের। জেলেরা সৈকতেই জাল পরিষ্কার করেন। জালে আটকে থাকা মরা মাছ ফেলা হয় বালুচরে। মাছ পঁচে-গলে দুর্গন্ধ ছড়ায়।
টেকনাফ সদরের মহেষখালীয়াপাড়ার বাসিন্দা জেলে আব্দুর রশিদ জানান- প্রায় সময় মাছ ধরে কূলে আসার পর চরে জাল বিছিয়ে আটকাপড়া মাছসহ কাঁকড়া পরিষ্কার করি। কেউ এতে কোনো দিন বাধা দেয়নি। এসব মাছ ফেলে রাখলে কিছু অংশ কুকুরে খায়, বাকিগুলো জোয়ারে ভেসে যায়। তাই কষ্ট করে দূরে নিয়ে ফেলার কোনো কারণ নেই।
তবে এসব মাছ জাল থেকে ছাড়িয়ে সৈকতে ফেলার কারণে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি জেলে আব্দুর রশিদ অকপটে স্বীকার করে নেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রবিউল হাসান বলেন- সৈকতে পড়ে থাকা মৃত প্রাণীর দেহগুলো পুঁতে ফেলার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন