করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে সুখবর অক্সফোর্ডের

IMG_20201004_175109.jpg

দিসিএম

আগামী তিন মাসের মধ্যে ব্রিটেনে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেয়া হবে। আর ছয় মাসের মধ্যেই প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিক টিকা পাবেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এদিকে ভারতও আগামী বছরের গোড়াতেই ভ্যাকসিন গণহারে প্রয়োগ শুরু করবে। আর জাপান সরকার ঘোষণা দিয়েছে, দেশটিতে বিনামূল্যে প্রত্যেক নাগরিক টিকা পাবেন।

বেশ কয়েকটি দেশ করোনার নিরাপদ ভ্যাকসিন নিয়ে অনেক খানি অগ্রগতি দেখিয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিনের ওপর ভরসা যে কোনো দেশের ভ্যাকসিনের চেয়ে বেশি। এবার ব্রিটেনের গবেষকরা জানিয়েছেন, আগামী তিন মাসের মধ্যে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সক্ষম, ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হবে। অক্সফোর্ডের টিকা নিয়ে কাজ করা বিজ্ঞানীরা আশা প্রকাশ করে বলেন, দেশটির সংশ্লিষ্ট বিভাগ ২০২১ সালের আগেই এটি চূড়ান্ত করবে। এ ছাড়া ছয় মাসের মধ্যেই প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিক করোনার টিকা পাবেন।
ভ্যাকসিন আবিষ্কারে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ, রাশিয়া। তাদের তৈরি ‘স্পুটনিক ফাইভ’ ভ্যাকসিন এবার মিসরে যাবে। কয়েক দিনের মধ্যে ২৫ মিলিয়ন ডোজ পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে ব্রাজিল ৫০ মিলিয়ন, মেক্সিকো ৩২ মিলিয়ন, উজবেকিস্তান ৩৫ এবং নেপাল ২৫ মিলিয়ন ডোজ রুশ ভ্যাকসিন চেয়েছে। রুশ কর্তৃপক্ষ সে উৎপাদন বাড়িয়েছে।
ভারতে আগামী বছরের শুরুতেই ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করা যাবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে শঙ্কা দেখা দিয়েছে অধিক জনসংখ্যা নিয়ে। কারণ, ১৩০ কোটি মানুষকে একসঙ্গে টিকার আওতায় আনা কোনোভাবেই সহজ কথা নয়। দেশটি এখন সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃতের দিক দিয়ে ধারাবাহিকভাবে শীর্ষে রয়েছে।
এদিকে জাপানে বসবাসরত সবাইকে বিনামূল্যে করোনার টিকা দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন নতুন প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদো সুগা। সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা প্যানেল তা অনুমোদন দেয়। এ জন্য জাপান সরকারের ব্যয় হবে প্রায় ৬ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার।
করোনার টিকা বণ্টনের বিষয়টি চূড়ান্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্রও। জনসংখ্যাকে চারটি ধাপে ভাগ করে, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এটি প্রয়োগের সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রথম ধাপে ভ্যাকসিন পাবেন চিকিৎসক ও শিক্ষকরা।
আপনার মন্তব্য লিখুন